advertisement
আপনি দেখছেন

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মন্ত্রণালয়গুলোর অধিকাংশ মিটিংই অনলাইনের মাধ্যমে হয়েছে। এসব মিটিংয়ের খরচ নিয়ে কয়েকজন সচিব অবাস্তব বাজেট দিয়েছেন। এর মধ্যে শিঙ্গাড়ার খরচ উল্লেখ করায় তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে ৩০টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি এ কথা বলেন।

planning minister ma mannanপরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আমরা অনলাইনে মিটিং করলাম। এখন আমরা কি জুমের মাধ্যমে আপনাদের কাছে শিঙ্গাড়া পাঠাবো? এটা কি সঠিক প্রশ্ন? এমন অযৌক্তিক বিষয় সবার নজরে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে চিন্তাভাবনা চলছে, যার পার্চেজ নিয়ে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন।

তিনি বলেন, বাসায় বসে জুম মিটিং করলে আপ্যায়ন ব্যয় কেনো লাগবে? এসব অযৌক্তিক আপ্যায়ন ব্যয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীও উদ্বিগ্ন। তিনি বিভিন্ন সময় এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সাংবাদিকরাও রিপোর্ট করেছেন। তাছাড়া এগুলো জনগণের অর্থ। আর জনগণের অর্থ দিয়ে অপচয় গ্রহণযোগ্য নয়। করোনা হোক বা না হোক, কোনো সময়ই জনগণের অর্থ নিয়ে নয়-ছয় করা যাবে না।

planning minister ma mannan 2পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান

কিছু কিছু ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি আছে তা স্বীকার করে তিনি বলেন, ভুল হোক বা হিউম্যান ইরর হোক, তাই বলে বারবার একই ভুল গ্রহণযোগ্য নয়। এটাকে বন্ধ করার জন্য সবাই মিলে আলোচনা করেছি। এ বিষয়ে সবাই একমত হয়েছি। যার যার অবস্থান থেকে এটা মোকাবেলা করা হবে। পরিকল্পনা কমিশন আরো সচেতন হবে। আর যারা প্রকল্প তৈরি করবেন, তারাও অনেক বেশি সাবধানতা অবলম্বন করবে।

মন্ত্রী বলেন, শুধুু করোনার জন্য নয়, অপ্রয়োজনীয় ব্যয়-অপচয় বিশেষ করে যেকোনো পরিস্থিতিতে এটা আমাদের পরিহার করতে হবে। এসব বিষয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন সময় শেয়ার করলে তিনি বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। এগুলো তিনি গ্রহণ করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

sheikh mujib 2020