advertisement
আপনি দেখছেন

সবার আগে করোনার টিকা নেয়ার কথা জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। কিন্তু আজ বুধবার রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন হয়। এদিন প্রথম টিকা নেন হাসপাতালটির সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনু বেরোনিকা কস্তা।

ahm mustafa kamal 2অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমি একা টিকা নিলে তো হবে না। তবে এখনো সবার আগেই টিকা নিতে চাই। যেদিন টিকা নেবো, সেদিন সবার আগে থাকবো আমি। এ ব্যাপারে আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি।

আজ অর্থনৈতিক ও সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ভার্চুয়াল বৈঠক শেষে এসব কথা বলেন তিনি। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

টিকাদান কর্মসূচির বিষয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন এলাকাভিত্তিক টিকা বিতরণ করা হবে। তারিখ নির্ধারণসহ অন্যান্য বিষয়ে কাজ এগিয়ে চলছে। আমার টিকা নেয়ার দিন কবে আসবে, তা এখনো জানি না।

pm ticka inauguration 1রুনু বেরোনিকা কস্তাকে টিকা দেয়া হচ্ছে

সর্বপ্রথম করোনার টিকা নিয়ে ইতিহাস গড়েছেন নার্স রুনু বেরোনিকা কস্তাসহ ৫ জন সম্মুখযোদ্ধা। আজ বুধবার বিকেলে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে তাদের শরীরে টিকা প্রয়োগ করা হয়।

হাসপাতালটিতে এদিন টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সেখানকান সিনিয়র স্টাফ নার্স রুনুকে প্রথম টিকা দেয়া হয়। একই হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আহমেদ লুৎফুল মোবেন টিকা নেন।

পরে পর্যায়ক্রমে অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা (স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক), দিদারুল ইসলাম (ট্রাফিক পুলিশ মতিঝিল বিভাগ) ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইমরান হামিদকে (সেনাবাহিনী) টিকা প্রয়োগ করা হয়।

পাঁচটি ভিন্ন পেশার ৫ জন ইতিহাসের পাতায় নাম লেখালেন। স্বাস্থ্যকর্মীসহ অন্যান্য পেশার আরো ২০ জনকে টিকা দেয়া হচ্ছে সবার আগে।

pm ticka inaugurationটিকাদান কার্যক্রমের উদ্বোধন

এর আগে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত করোনার টিকা ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে বাংলাদেশে পৌঁছায়। এ টিকা ব্যবহারের অনুমতি দেয়ার পর আজ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। এর মধ্য দিয়ে করোনা মোকাবেলায় নতুন অধ্যায়ের সূচনা হলো।

গতকাল মঙ্গলবার ভারত থেকে আসা টিকা পরীক্ষা-নিরীক্ষায় নিরাপদ প্রমাণিত হওয়ায় ব্যবহারের অনুমতি দেয়ার কথা জানানো হয়। সরকারের ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান জানান, প্রথম চালানের ৫০ লাখ ডোজ ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এদিকে, টিকাদান ব্যবস্থাপনার অ্যাপ ও ওয়েবসাইট আজই চালু হয়েছে বলে জানানো হয়। টিকা নিতে আগ্রহীদের অনলাইনে নিবন্ধন করতে বলা হয়েছে।

ইতোমধ্যে দেশে এসে পৌঁছেছে সেরামের টিকার ৭০ লাখ ডোজ। এর মধ্যে গত ২০ জানুয়ারি ভারত সরকারের পক্ষ থেকে উপহার হিসেবে এসেছে ২০ লাখ ডোজ। বাকি ৫০ লাখ গত সোমবার এসেছে। এগুলো বাংলাদেশ সরকারের কেনা। এভাবে প্রতিমাসে ৫০ লাখ করে মোট ৩ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আসবে।