advertisement
আপনি দেখছেন

যে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের মাধ্যমে দেশে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছিল, সেই টিকার সঙ্কট চলছে বেশ অনেকদিন ধরেই। বিকল্প হিসেবে সরকার চীনা ভ্যাকসিন এনেছে ঠিকই, কিন্তু অক্সফোর্ডের টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণ করা ব্যক্তিদের তা দেয়া যাচ্ছে না। এ নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়লেও এতদিন কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি।

oxford corona ticka

এবার সুখবর জানালেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। আজ শুক্রবার (১১ জুন) তিনি জানিয়েছেন, আমাদের জন্য অতি জরুরি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১০ লাখ ৮০০ ডোজ টিকা দিতে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। কোভ্যাক্স অ্যালায়েন্সের আওতায় এসব টিকা পাওয়া যাচ্ছে। শিগগিরই দেশে এসে পৌঁছাবে টিকাগুলো। অবশ্য দিনক্ষণ এখনো ঠিক হয়নি।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত করোনা ভ্যাকসিন ‘কোভিশিল্ড’ নাম দিয়ে উৎপাদন করছে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট। বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল ৩ কোটি ডোজের। কিন্তু ৭০ লাখ পাঠানোর পর সরবরাহ বন্ধ করে দেয় ভারত। টিকা না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে প্রথম ডোজ টিকাদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল টিকার নিবন্ধনও।

serum vaccine india

ভারতের কাছে অনেকবার অনুরোধ করা হয়েছে টিকা পাঠানোর জন্য। এমনও বলা হয়েছে, অন্তত যেন ১৫ লাখ টিকা পাঠানো হয়, যাতে দ্বিতীয় ডোজগুলো পূর্ণ করা যায়। কিন্তু এ নিয়ে দেশটির পক্ষ থেকে সাড়া পাওয়া যায়নি। এ অবস্থায় পুরো টিকাদান কর্মসূচিই মুখ থুবড়ে পড়েছে। তাই অক্সফোর্ডের টিকা পাওয়া দেশের জন্য বিরাট স্বস্তির ব্যাপার।