advertisement
আপনি পড়ছেন

করোনার সংক্রমণ আবারো বেড়ে যাওয়ায় তা নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ জারি করেছে সরকার। এর আওতায় গত ২১ জানুয়ারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা আসে, পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে ফেব্রুয়ারির বইমেলাও। কিন্তু এর মধ্যেই চালু রাখা হয় মাসব্যাপী ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা।

crowds at trade fairs 2বাণিজ্যমেলায় ভিড়

ইংরেজি নতুন বছরের প্রথমদিন থেকে পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে এই মেলা চলছে। নতুন জায়গায় মেলার প্রথম ২০ দিন জমজমাট না হলেও শেষের কয়দিন, বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোতে উপচেপড়া ভিড় দেখা যাচ্ছে। গত শুক্রবার বিধিনিষেধ জারির দিনেও ভিড় ছিল মেলায়, আজও একই অবস্থা লক্ষ করা গেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশে আবারো করোনায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার বেড়েছে। এর মধ্যেই গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৪৪০ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে, মোট সংক্রমিত হয়েছে ১৭ লাখ ৬২ হাজার ৭৭১ জনে। এ ছাড়া ভাইরাসটিতে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে ২৪ ঘণ্টায়, মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৮ হাজার ৩০৮ জন।

crowds at trade fairsবাণিজ্য মেলায় ভিড়, ফাইল ছবি

মহামারিকালে দেশে রোগী শনাক্তের হারে নতুন রেকর্ড হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়, ৩৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ। এর আগে গত বছরের ২৪ জুলাই শনাক্তের সর্বোচ্চ হার ছিল ৩২ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এমতাবস্থায় বাণিজ্যমেলায় দেখা গেলো ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়, যাতে করোনাকালীন বিধিনিষেধের বালাই ছিল না এদিন।

ক্রেতা-দর্শনার্থীদের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতা দেখা যায় মেলায়। ঢাকার পাশাপাশি আশপাশের জেলাগুলো থেকে আসা এসব মানুষের অনেকের মুখেই মাস্ক দেখা যায়নি। এ ছাড়া দূরত্ব বজায় রাখাসহ অন্যান্য বিধিনিষেধের বাস্তব প্রতিফলন চোখে পড়েনি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সপ্তাহের অন্যান্য দিনগুলোতে মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীদের তেমন একটা ভিড় দেখা যায় না। তবে মেলার শেষের দিকে এসে ছুটির দিনগুলোতে ভিড় বেড়েছে। তবে ভিড় দেখা গেলেও কেনাবেচা তেমন একটা বাড়েনি বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ীরা।