advertisement
আপনি দেখছেন

সকালের নাস্তায় কিংবা দিনের যে কোন সময় খিদে লাগলেই ফল হিসেবে খাওয়া যায় কলা। ফলের দোকান থেকে শুরু করে রাস্তা পাশের চায়ের দোকান যে কোন জায়গায় পাওয়া যায় পুষ্টিগুণে ভরপুর এই ফলটি। দামও তেমন একটা বেশি নয়। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির এই বাজারে বর্তমানে ৫-১০ টাকাতেই পাওয়া যায় এক একটি কলা।

banana exhibition

তবে এবার যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রদর্শনীতে এক কোটি টাকারও বেশি দামে (এক লাখ ২০ হাজার ডলার) বিক্রি হয়েছে টেপ লাগানো একটি কলার শিল্পকর্ম। গত সপ্তাহে দেশটির মিয়ামি বিচে প্রদর্শনীটির আয়োজন করে প্যারিসভিত্তিক আর্ট গ্যালারি পেরোতন। আর সেই প্রদর্শনীতেই ইতালীর শিল্পী মৌরিজিও ক্যাটেলানের করা এই কলার শিল্পকর্মটি বিক্রি হয়।

সিএনএন জানায়, প্রদর্শনীতে মৌরিজিওর এই শিল্পকর্মটির তিনটি সংস্করণ প্রদর্শন করা হয়। যার দুইটি ইতোমধ্যে বিপুল দামে বিক্রি হয়ে গেছে। শেষ সংস্করণটিও অতি দ্রুত বিক্রি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে এটির দাম আগের দুইটির তুলনায় বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গ্যালারিটির প্রতিষ্ঠাতা ইমানুয়েল পেরোতন জানান, ক্যাটেলান মিয়ামির একটি মুদি দোকান থেকে তিনটি কলা কেনেন। তারপর সেগুলোকে টেপ দিয়ে বোর্ডে লাগিয়ে শিল্পকর্মগুলো তৈরি করেন। বিশ্ব বাণিজ্যের একটি প্রতীক হলো কলা। এছাড়াও এর আরো একটি অর্থ আছে। বিদ্রুপ ও ব্যঙ্গ করার জন্যও এটি একটি ক্লাসিক উপকরণ।

মূলত পপুলার আর্ট কালচারকে চ্যালেঞ্জ ও ব্যাঙ্গ করতেই ক্যাটেলান এ শিল্পকর্ম তৈরি করেছেন। তবে কলাগুলো পঁচে যাওয়ার পর কী হবে এ বিষয়ে কোন ধরনের নির্দেশনা পাওয়া যায়নি।

এর আগেও এমন ব্যাঙ্গাত্ম শিল্পকর্ম তৈরি করে বিশ্বজুড়ে আলোচিত হয়েছিলেন ক্যাটেলান। ২০১৬ সালে ১৬ ক্যারোটের সোনা দিয়ে একটি টয়লেট বানিয়েছিলেন তিনি। যার মূল্য ছিল প্রায় আট কোটি ৭০ লাখ টাকা (১০ লাখ ২৫ হাজার ডলার)। টয়লেটটি ইংল্যান্ডের গগেনহেমে রাজপ্রাসাদে প্রদর্শনীর জন্য রাখা হলে সেখান থেকে সেটি চুরি হয়ে যায়।

যদিও চুরির আগে সর্বোচ্চ তিন মিনিটের জন্য সোনার টয়লেটটি ব্যবহার করতে পারতেন দর্শনার্থীরা। এই শিল্পকর্মের পেছনেও ক্যাটেলানের একটি ব্যাঙ্গাত্মক বার্তা ছিল। সে সময় তিনি বলেছিলেন, একশ বা হাজার টাকা খরচ করে খেলেও দিন শেষে ফলাফল একই!