advertisement
আপনি দেখছেন

শরীরের অতিরিক্ত ওজন স্বাস্থ্যের জন্য যেমন মারাত্মক হুমকি তেমনি মানসিক দিক থেকেও সুখকর নয়। স্থুলকায় মানুষ সবসময় এক ধরনের বিষণ্ণতায় ভোগেন। তাদের মনে দুই ধরনের ভয় কাজ করতে থাকে। প্রথমত- অতিরিক্ত ওজনের শরীর দেখে মানুষ কী ভাবছে বা মনে করছে- এ নিয়ে ভেবে মরেন। দ্বিতীয়ত- স্থুলকায় শরীরে না জানি জানা-অজানা কত রোগ বাসা বেঁধেছে।

crush diet


আর এই অতিরিক্ত ওজন থেকে রেহাই পেতে মানুষ কত কিছুই না করে থাকে। তবে কিছু নিয়ম মেনে চললে এবং নিয়মিত শরীরচর্চা ও খাদ্যাভ্যাস ঠিক রাখলে অতিরিক্ত ওজনের সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

ডায়েট বিশেষজ্ঞরা সকালের নাস্তায় এমন কিছু খাবার রাখার পরামর্শ দিয়েছেন, যেগুলো খেলে অতিরিক্ত ওজন শরীর থেকে সহজেই ঝরে যাবে। আসুন জেনে নিই, শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য সকালের নাস্তা কেমন হওয়া চাই।

অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য অনেকেই সকালের নাস্তা দেরি করে খান কিংবা প্রাতরাশ করতে চান না। এটি মারাত্মক ধরনের ভুল অভ্যাস।

গবেষণায় দেখা গেছে, সকালের নাস্তা না খেলে শরীরের অতিরিক্ত চর্বি বার্ন করা কঠিন হয়ে যায়। দুপুরের খাবার কিংবা রাতের খাবারের চেয়ে সকালের নাস্তা একজন স্থুলকায় মানুষের অতিরিক্ত ওজন কমানোর ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

১. সকালে ঘুম থেকে ওঠে দুই গ্লাস কুসুম গরম পানি পান করুন। ওজন কমাতে এটা খুবই কার্যকরী উপায়। চাইলে নরমাল পানি কিংবা লেবু পানিও পান করতে পারেন।

২. ঘুম থেকে ওঠার একঘন্টার মধ্যেই সকালের নাস্তা পর্ব শেষ করে ফেলুন।

৩. সকালের নাস্তায় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার থাকা চাই। যার ধরুন খুব তাড়াতাড়ি খিদে লাগবে না। এমনকি দুপুরের ভোজের সময় অতিভোজও করতে হবে না।

healthy breakfast

৪. সকালের নাস্তায় সবজি এবং ফলমূল রাখার চেষ্টা করুন। অতিরিক্ত ওজন কমাতে ফলমূল কিংবা সবজি বেশ দ্রুত কাজ করে।

৫. সকালের নাস্তায় উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার রাখা যাবে না। পাশাপাশি অতিরিক্ত চিনিযুক্ত চা অথবা মিষ্টি জাতীয় কোন কিছু দিয়ে সকালের নাস্তা করবেন না। চিনিজাতীয় কোন পানীয় না রাখা ভালো।

৭. শস্যদানা জাতীয় খাবারও এড়িয়ে চলুন। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এর প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, সকালের নাস্তায় এ জাতীয় খাবার বেশি রাখলে অতিরিক্ত ওজন বাড়ার সম্ভাবনা কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

sheikh mujib 2020