advertisement
আপনি দেখছেন

পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গিয়ে হেনস্তার শিকার হয়েছেন প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম। গতকালের এই ঘটনার পর তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আজ রিমান্ড চাওয়া হলে সেটা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। পুরো ঘটনা নিয়ে মুখ খুলেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

health minister zahid malek 2স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক

আজ মঙ্গলবার (১৮ মে) সাংবাদিকদের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমি সেখানে ছিলাম না। যতটুকু শুনেছি, সচিব সাহেবের পাশের রুমে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফাইল রাখা ছিল। ওই রুমে যখন কেউ ছিলেন না তখন সাংবাদিক রোজিনা সেখানে গিয়ে কিছু নথির ছবি তোলেন এবং আরও কিছু নথি ব্যাগের মধ্যে ঢুকিয়ে রাখেন। এটা দেখে দায়িত্বরতরা তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক আরও বলেন, সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তা করার ঘটনা সত্য নয়। তাকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে মাত্র। আসলে গুরুত্বপূর্ণ এবং ‘নন ডিসক্লোজার’ এসব ফাইল প্রকাশ হয়ে গেলে সেটা রাষ্ট্রের জন্য ক্ষতিকর। টিকা সংক্রান্ত চুক্তির এসব নথি প্রকাশিত হবে না বলে আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে কথা দিয়েছি। ফাইলের মধ্যেও তা লেখা আছে।

journalist rozina islam

প্রসঙ্গত, গতকাল সোমবার (১৭ মে) রাতেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সাংবাদিক রোজিনার বিরুদ্ধে অনুমতি ছাড়া ছবি তোলা ও তথ্য চুরির অভিযোগে শাহবাগ থানায় মামলা করা হয়েছে। মামলার ধারাগুলো হলো- ৩৭৯, ৪১১ এবং অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্ট এর ৩/৫।

এরপর আজ মঙ্গলবার রোজিনা ইসলামকে ৫ দিনের রিমান্ডে নিতে পুলিশের আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। সেইসঙ্গে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী বৃহস্পতিবার (২০ মে) তার জামিন আবেদন নিয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।