advertisement
আপনি পড়ছেন

টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারলেও প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতে ফিরতেই উজ্জ্বল বাংলাদেশ দল। জিম্বাবুয়ে সফরের প্রথম ওয়ানডেতে শুক্রবার রানের ছন্দ দেখা গেছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে। ফিফটি করেছেন চার ব্যাটসম্যান।

bijoy vs zimতিন বছর পর ওয়ানডে খেলতে নেমে হাফ সেঞ্চুরি করলেন এনামুল

তিন বছর পর ওয়ানডে খেলতে নেমেই হাফ সেঞ্চুরি করেছেন এনামুল হক বিজয়। তামিম ইকবাল, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিমও হাফ সেঞ্চুরি করেন। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে তাদের চার সেঞ্চুরিতেই ২ উইকেটে ৩০৩ রানের বড় স্কোর গড়েছে বাংলাদেশ। জয়ের জন্য জিম্বাবুয়ের টার্গেট এখন ৩০৪ রান।

তামিম-লিটনের ব্যাটে দারুণ শুরু পেয়েছিল বাংলাদেশ। তারা ওপেনিংয়ে ১১৯ রানের জুটি গড়েন। এ জুটি বিচ্ছিন্ন হয় তামিম আউট হলে। ৫৪তম হাফ সেঞ্চুরির ইনিংসে ওয়ানডে অধিনায়ক ৬২ রান করেন। দলীয় ১৭১ রানে পেশীতে টান পড়ায় অবসরে যান লিটন দাস। সপ্তম হাফ সেঞ্চুরিটা সহজেই ষষ্ঠ সেঞ্চুরি হতে পারতো লিটনের। কিন্তু চোটে পড়ে মাঠ ছাড়তে হয় তার। ৮৯ বলে ৮১ রান করেন তিনি।

বিজয়ের সেঞ্চুরি, হাফ সেঞ্চুরির সংখ্যা এতদিন সমানই ছিল। আজ চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি করেছেন। ৬২ বলে ৭৩ রান করেন বিজয়। ঘরোয়া ক্রিকেটে ওয়ানডেতে নিয়মিত রান করেই জাতীয় দলে এসেছিলেন তিনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ে সফরে টেস্ট, টি-টোয়েন্টিতে সুযোগ পেয়ে রান না করায় সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন বিজয়। অবশেষে ওয়ানডেতে সুযোগ পেয়েই জ্বলে উঠলেন।

মুশফিকের সঙ্গে ৯৬ রানের জুটি গড়েছেন বিজয়। ইনিংসের বাকি পথটা পাড়ি দিয়েছেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ। মুশফিক ৪২তম হাফ সেঞ্চুরি করেছেন। অপরাজিত ছিলেন ৫২ রানে। মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত ২০ রান করেন। জিম্বাবুয়ের ভিক্টর নাউচি, সিকান্দার রাজা ১টি করে উইকেট পান।