advertisement
আপনি পড়ছেন

শুরুটা হয়েছিল তামিম ইকবাল খানের দুর্দান্ত ফিফটি দিয়ে। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে শেষদিকে অর্ধশতকের ঘরে পা রাখেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। মাঝে আফিফ হোসেন ধ্রুব, মুশফিকুর রহিমরা খেলেছেন মাঝারি মানের ইনিংস। দলীয় প্রচেষ্টায় সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে ২৯১ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে রাসেল ডোমিঙ্গোর শিষ্যরা।

riad and mushfiqতামিমের পর ফিফটি করেছেন রিয়াদ

হারারের স্পোর্টস ক্লাব মাঠে টস হারা বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছিল দারুণ। ১১ ওভারে স্কোরবোর্ডে ৭১ রান তোলেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল খান ও এনামুল হক বিজয়। ফিফটি করে ক্রিজে টিকে থাকতে পারেননি তামিম। ব্যক্তিগত ৫০ রানে তানাকা চিবাঙ্গার শিকার হন অধিনায়ক। তার আগে ৪৫ বলের মোকাবেলায় ১০ চার এবং এক ছয় হাঁকান তামিম।

সঙ্গী হারিয়ে বিজয়ও বেশিক্ষণ টেকেননি। অসাবধানতায় রান আউটের ফাঁদে পড়েন কুষ্টিয়ার এই ক্রিকেটার। ২০ রান আসে বিজয়ের ব্যাট থেকে। উইকেটে এসে সাবলীল ব্যাটিং করছিলেন মুশফিকুর রহিম। ওয়েসলে মাধেভেরের করা ২৪তম ওভারের প্রথম বলে টনি মুনয়োঙ্গার হাতে ক্যাচ দেন সাবেক অধিনায়ক। তার আগে ২৫ রান করেন মুশফিক।

প্রথম ওয়ানডেতে লিটন কুমার দাস হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে পড়ায় একাদশে জায়গা পান নাজমুল হোসেন শান্ত। সুযোগের সদ্ব্যব্যহার করতে পারেননি ২৩ বছর বয়সী ক্রিকেটার। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে ৫৫ বল খেলে ৩৮ রান করেন শান্ত। পঞ্চম উইকেটে আফিফ হোসেন ধ্রুবর সাথে ৮১ রানের জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। 

অল্পের জন্য ফিফটি বঞ্চিত হন আফিফ। ৪১ রানে সিকান্দার রাজার প্রথম শিকারে পরিণত হন এই তরুণ ক্রিকেটার। কিছুক্ষণ পর ১৫ রানে ব্যাট করতে থাকা মেহেদি হাসান মিরাজকেও ফেরান রাজা। শেষ পর্যন্ত ৮০ রানে অপরাজিত থাকেন রিয়াদ। ৮৪ বলে তিনটি করে চার এবং ছয় মারেন সাবেক অধিনায়ক। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ২৯০ রানের পুঁজি পায় বাংলাদেশ।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর