আপনি পড়ছেন

হোয়াইট হাউসের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে ইরান। মার্কিন আদালতের অভিযোগ, ইরানের বিপ্লবী গার্ডের একজন সদস্যের নেতৃত্বে বোল্টনকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। বৃহস্পতিবার ইরান মার্কিন আদালতের দাবিকে ‌'হাস্যকর' ও ভিত্তিহীন বলে অভিহিত করেছে। খবর এলবিসি গ্রুপ টিভি।

nasser kanani and boltonনাসের কানানি এবং জন বোল্টন

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসের কানানি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অবিরাম অভিযোগ তুলছে। এটি তাদের ইরানের বিরুদ্ধে ভীতি প্রদর্শনের ব্যর্থ নীতির পরিচয় বহন করে। মার্কিন বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তারা ইরানের বিরুদ্ধে নতুন গল্প ফাঁদছে, যার কোনো প্রমাণ বা নথিপত্র নেই। প্রমাণ এবং প্রয়োজনীয় নথি সরবরাহ না করেই তারা অব্যাহত অভিযোগ তুলেই যাচ্ছে।

গতকাল বুধবার মার্কিন বিচার বিভাগ বোল্টনকে হত্যাচেষ্টায় ইরানের তৎপরতার বিষয়টি নিশ্চিত করে। বিচার বিভাগ এক বিবৃতিতে জানায়, শাহরাম বোরসাফি নামে এক ব্যক্তি যিনি মেহেদি রেজাই নামেও পরিচিত, তিনি মার্কিন রাষ্ট্রদূত বোল্টনকে হত্যা করার জন্য ৩ লাখ ডলার দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সম্ভবত ২০২০ সালের জানুয়ারিতে মার্কিন হামলায় নিহত সিনিয়র বিপ্লবী গার্ড কমান্ডার কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে এই অপতৎপরতা চালানো হয়।

সোলেইমানিকে ২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন ড্রোন হামলার মাধ্যমে হত্যা করা হয়েছিল। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এটিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অপারেশন ভেঞ্জেন্সের সাথে তুলনা করেন। ওই অভিযানে আমেরিকান পাইলটরা জাপানি অ্যাডমিরাল ইসোরোকু ইয়ামামোতোকে বহনকারী বিমানটিকে গুলি করে ভূপাতিত করেছিলেন।

সোলেইমানি ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদিল আব্দুল মাহদির সাথে দেখা করতে যাচ্ছিলেন এবং লেবানন বা সিরিয়া থেকে ইরাকে অবতরণের পর হামলার শিকার হন।

এ বিষয়ে আদিল আবদুল মাহদি বলেন, এই অঞ্চলে দুদেশের মধ্যে উত্তেজনা কমানোর জন্য ইরাক সৌদি আরবের পক্ষ থেকে যে চিঠি পাঠিয়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতে সোলেইমানি ইরানের বার্তা নিয়ে আসছিলেন। তবে সেই বার্তা আর প্রকাশিত হয়নি।

একইদিন পপুলার মোবিলাইজেশন ফোর্সেসের (পিএমএফ) চার সদস্যকেও হত্যা করা হয়েছিল। হামলার পর নিহত সোলেইমানিকে চেনা যাচ্ছিল না। তার আঙুলে পরা একটি আংটির মাধ্যমে তাকে শনাক্ত করা হয়। পরবর্তীতে ডিএনএ পরীক্ষা করে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর