advertisement
আপনি পড়ছেন

ইরানের পারমাণবিক চুক্তি পুনর্বহাল প্রচেষ্টা একপ্রকার থমকে আছে। ইরানের শর্ত পশ্চিমারা মানছে না, আবার পশ্চিমারা যে শর্ত দিচ্ছে, তাতে ইরানের সায় নেই। এতে চুক্তিটি প্রায় ভেস্তে যেতে চলেছে। তবে একজন সিনিয়র ইরানি কূটনীতিক শুক্রবার জানিয়েছেন, পারমাণবিক চুক্তি পুনরুদ্ধারের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রস্তাব ‘গ্রহণযোগ্য’ হতে পারে, যদি ইরানকে সুরক্ষা, নিষেধাজ্ঞা এবং গ্যারান্টির বিষয়ে আশ্বাস দেয়। আইআরএনএর বরাত দিয়ে এই খবর দিয়েছে ওয়েল প্রাইস ডটকম।

flag iran 2ইইউর প্রস্তাবে ইতিবাচক ইরান

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই ইরানি কূটনীতিক শুক্রবার বলেন, ইরান এমন নিশ্চয়তা চাইছে যেনো, অন্য কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট একতরফাভাবে আর চুক্তি থেকে সরে যেতে না পারে। চুক্তিটি যদি এখনও পুনর্বহাল সম্ভব হয়, তাহলে নতুন করে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা অবশ্যই তুলে নিতে হবে।

মার্কিন-ইরান পারমাণবিক আলোচনার ইইউ মধ্যস্থতাকারীদের চলতি সপ্তাহের শুরুতে চুক্তির চূড়ান্ত খসড়া দুই পক্ষকে উপস্থাপন করার কথা ছিল। কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ কূটনীতিক জোসেপ বোরেল এক টুইট বার্তায় বলেন, খসড়াটি চূড়ান্তভাবে পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

টু্ই্টে বোরেল আরও বলেন, প্রতিটি প্রযুক্তিগত সমস্যা এবং অনুচ্ছেদের পেছনে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত রয়েছে। এগুলোর রাজনৈতিক সমাধান প্রয়োজন। যদি দুইপক্ষ ইতিবাচক সাড়া দেয়, তাহলে আমরা চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে পারি।

বিশ্লেষকরা বলছেন, যদি পশ্চিমাদের সাথে ইরানের চুক্তি পুনর্বহাল করা সম্ভব হয়, তাহলে তা ইরানের তেল রপ্তানির বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পথ প্রশস্ত করবে। এতে বাজারে ঘাটতি কমে যাবে এবং তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ৮০ ডলারে নেমে যেতে পারে।

এনার্জি ইন্টেলিজেন্স রিসার্চ অ্যান্ড অ্যাডভাইজরি ইউনিট এই সপ্তাহে জানিয়েছে, ইরানের তেল শিল্পের ওপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হলে উৎপাদন এবং রপ্তানি তুলনামূলকভাবে দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর