আপনি পড়ছেন

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে একটি মসজিদের দরজায় গাড়িবোমা বিস্ফোরণে অন্তত ৭ জন নিহত এবং ৪০ জনের মতো আহত হয়েছেন। আজ শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নামাজ শেষে মুসল্লিরা মসজিদ থেকে বের হওয়ার সময় ওই বিস্ফোরণ ঘটে। শুক্রবার জুমার দিনে যেন রুটিন করেই মসজিদে বোমা হামলা চালাচ্ছে জঙ্গিরা। তাৎক্ষণিক গাড়ি বোমা হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনো গোষ্ঠী। তবে গত বছর তালেবান ক্ষমতায় বসার পর থেকে দেশটিতে আইএস জঙ্গিগোষ্ঠীর হামলা বেড়েছে। খবর আল জাজিরা।

kabul bomb bdকাবুলে বোমা বিস্ফোরণে ব্যবহৃত গাড়িটি দেখছেন তালেবান কর্মকর্তারা

কাবুলের সবচেয়ে সুরক্ষিত এলাকা গ্রিন জোন নামে পরিচিত ওয়াজির আকবর খান এলাকার মসজিদে শুক্রবার বিস্ফোরণটি ঘটেছে। ওই এলাকায় বিভিন্ন দেশের দূতাবাসসহ ন্যাটোর দপ্তর রয়েছে। এলাকাটি ক্ষমতাসীন তালেবানের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তার মধ্যেই ঘটলো গাড়ি হামলার ঘটনা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণটি ঘটেছে একটি ম্যাগনেটিক বোমার কারণে। দূর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে।

কাবুল পুলিশের মুখপাত্র খালিদ জাদরান জানান, মসজিদে প্রবেশ ও বের হওয়ার প্রধান সড়কে বিস্ফোরণটি ঘটেছে। বিকেলে নামাজের পর মুসল্লিরা মসজিদ থেকে বেরিয়ে আসার সময় বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। হতাহতরা সবাই বেসামরিক নাগরিক।

তালেবান কর্তৃপক্ষ জানায়, সাতজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ৪১ জন। তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা ৯ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছেন।

গ্রিন জোনে ইতালির একটি এনজিও পরিচালিত হাসপাতালসূত্র জানিয়েছে, বিস্ফোরণের পর ১৪ জনকে ওই হাসপাতালে নেওয়া হয়। এদের মধ্যে চারজন হাসপাতালে আনার আগেই মারা গেছে। পরে আরও তিনজন মারা যায়।

এ হামলার দায় কেউ স্বীকার না করলেও ক্ষমতাসীন তালেবান আইএস জঙ্গিদের দায়ী করছে। তবে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর থেকে আফগানিস্তানে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস এ ধরনের বেশ কয়েকটি হামলা চালিয়েছে।

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল নাফি টাকোর বলেন, এ ঘটনার জন্য কারা দায়ী তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর