আপনি পড়ছেন

ইসলামী ব্যাংকসহ তিনটি ব্যাংক থেকে চলতি বছর সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকা তুলে নিয়েছে অসাধু চক্র। এরমধ্যে শুধু  ইসলামী ব্যাংক থেকেই ঋণের নামে নেওয়া হয়েছে প্রায় সাত হাজার কোটি টাকা। আর চলতি নভেম্বরেই ব্যাংকটি থেকে নেওয়া হয়েছে প্রায় ২৪৬০ কোটি টাকা। এসব ঋণের বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ নিয়ে পরিদর্শনও চলছে ব্যাংকগুলোতে।

bankতিনটি ব্যাংকের সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকা তুলে নিয়েছে অসাধু চক্র

ইসলামী ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া একটি কোম্পানির নাম নাবিল গ্রেইন ক্রপস লিমিটেড। ব্যাংকের নথিতে অফিসের ঠিকানা দেওয়া হয়েছে, বনানীর বি ব্লকের ২৩ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর বাড়ি। ঠিকানামতো গিয়ে দেখা যায়, সেটি একটি পূর্ণাঙ্গ আবাসিক ভবন। কোনো অফিস নেই সেখানে।

নাবিল গ্রেইন ক্রপসকে ১০১১ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে ইসলামী ব্যাংকের গুলশান সার্কেল-২ শাখা। এর মধ্যে গত ৬ জুলাই ২৯৩ কোটি, ৭ জুলাই ৪৩১ কোটি এবং ১৯ জুলাই দেওয়া হয় ৫৬ কোটি টাকা।

এ ব্যাপারে গুলশান সার্কেল-২ শাখার কর্মকর্তারা জানান, প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে গত মার্চে শাখায় প্রতিষ্ঠানটির হিসাব খোলা হয়। এরপর যা নির্দেশ এসেছে, সেই মোতাবেক তারা কাজ করেছে।

ঋণ পাওয়া আরেক প্রতিষ্ঠান মার্টস বিজনেস লিমিটেড। কোম্পানির অফিস ঠিকানা বনানীর ডি ব্লকের ১৭ নম্বর সড়কের ১৩ নম্বর বাড়ি। এ ঠিকানায় গিয়ে মিললো রাজশাহীর নাবিল গ্রুপের অফিস। তবে তারা জানিয়েছে, মার্টস বিজনেস নামে তাদের কোনো প্রতিষ্ঠান নেই।

মার্টস বিজনেসকে ১ থেকে ১০ নভেম্বর সময়ে ৯৮১ কোটি টাকা দিয়েছে ইসলামী ব্যাংকের ফার্মগেট শাখা।

এভাবেই ভুয়া ঠিকানা দিয়ে কাগুজে দুই কোম্পানি খুলে ইসলামী ব্যাংক থেকে দুই হাজার কোটি টাকা তুলে নিয়েছে একটি অসাধু চক্র। আটটি প্রতিষ্ঠানের নামে চলতি বছর ইসলামী ব্যাংক থেকে নানা উপায়ে প্রায় সাত হাজার কোটি টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে।

একইভাবে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক (এসআইবিএল) ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক থেকেও ২৩২০ কোটি টাকা তুলে নিয়েছে এসব কোম্পানি।

ঠিকানা মতো কোম্পানি নেই, তারপরও ঋণ দেওয়া কেন হলো- এ ব্যাপারে ইসলামী ব্যাংকের ফার্মগেট শাখার ব্যবস্থাপক আবদুর রব মৃধা জানান, প্রধান কার্যালয় এসব নিয়ে কথা বলবে। আমাদের কথা বলার কোনো সুযোগ নেই।

সূত্র জানায়, ব্যাংক তিনটির মালিকপক্ষই এসব ঋণের সুবিধাভোগী। যেসব কোম্পানির নামে ঋণ তোলা হয়েছে, তার একটির মালিকের ঠিকানা চট্টগ্রামে। আর বাকিগুলোর ঠিকানা রাজশাহীতে। বেশির ভাগ কোম্পানির নথিপত্রে রাজশাহীর নাবিল গ্রুপের সম্পর্ক রয়েছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর