আপনি পড়ছেন

পাকিস্তানের বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া দেশটির রাজনীতিতে সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপের বিষয়টি অবশেষে স্বীকার করেছেন। সেনাবাহিনী আর কখনও রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

qamar javed bajwa 1পাকিস্তানের বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া

গ্যারিসন শহর হিসেবে পরিচিত রাওয়ালপিন্ডির সেনা সদর দপ্তরে ২৩ নভেম্বর, বুধবার ৬২ বছর বয়সী এই জেনারেল নিহত সৈন্যদের পরিবারের উদ্দেশ্যে বিদায়ী ভাষণ দিয়েছিলেন। সেসময় তিনি স্বীকার করেছেন, পাকিস্তান সেনাবাহিনী জাতীয় রাজনীতিতে দশকের পর দশক ধরে অসাংবিধানিক হস্তক্ষেপ করে এসেছে। এর ফলে সেনাবাহিনীর মত শক্তিশালী এই প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে জনগণের সমালোচনার মুখে পড়েছে।

জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ২৯ নভেম্বর অবসরে যাচ্ছেন। তিনি জানিয়েছেন, গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল দেশটির রাজনীতিতে তারা আর কোনও হস্তক্ষেপ করবে না। তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই যে আমরা এটিকে কঠোরভাবে মেনে চলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এবং ভবিষ্যতেও মেনে চলব।'

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তাকে ক্ষমতাচ্যুত করার পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনেছিলেন। কিন্তু বাজওয়া সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি বলেছেন, দেশে যদি কোনও বহিরাগত ষড়যন্ত্র থাকত তবে সশস্ত্র বাহিনী নির্বিকারভাবে বসে থাকত না। ইমরান আরও অভিযোগ করেছিলেন যে সেনাবাহিনী তাকে ক্ষমতাচ্যুত করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছিল। যদিও সেনাবাহিনী তার এই অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে। এই প্রসঙ্গে বাজওয়া বলেন, ‘একটি মিথ্যা ন্যারেটিভের ওপর ভিত্তি করে গণ হিস্টিরিয়া তৈরি করা হয়েছে।'

এদিকে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের মুখপাত্র ফাওয়াদ চৌধুরী রয়টার্সকে জানিয়েছেন, সেনাপ্রধানের মন্তব্য নিয়ে কিছু বলতে চান না তিনি।

বাজওয়া অবশ্য ব্যাখ্যা করেননি কী কারণে সেনাবাহিনী পাকিস্তানের রাজনীতি থেকে সরে যেতে বাধ্য হচ্ছে। অথচ দেশটির ৭৫ বছরের ইতিহাসে ৪টি সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ৩ দশকেরও বেশি সময় ধরে একনায়কতান্ত্রিক শাসন কায়েম করেছিল সেনাবাহিনী।

সূত্র: রয়টার্স

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর