আপনি পড়ছেন

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, আমাদের আমলে ডিমের হালি ছিল ১১ টাকা, আর এখন একটা ডিমের দাম ১১টা। নিত্য পণ্যের জিনিসের দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে। গরিব মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। দেশে এটা একটা বড় সমস্যা। ক্ষমতাসীন সরকারের ব্যর্থতার কারণে এসব হয়েছে।

abdullah al noman 3বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান

তিনি আরও বলেন, আমাদের পোল্টি ফার্মে লাভ হচ্ছে না। কারণ এখানে গবেষণা নেই। বাজেট নেই। এসব খাতে আমাদের আরাও বেশি বাজেট দরকার, গবেষণা দরকার। উৎপাদন ও সরবরাহ সমন্বয় করতে হবে।’

২৫ নভেম্বর, শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রাণিখাদ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি: বিপর্যস্ত পোলট্রি ও ডেইরি খামার’ শীর্ষক সেমিনারে এসব কথা বলেন আবদুল্লাহ আল নোমান।

আব্দুল্লাহ আল নোমান আরও বলেন, ‘একটা দেশে সরকার আসবে যাবে, এটাই নিয়ম। কিন্তু উৎপাদন ব্যাহত করা যাবে না। উন্নয়নের স্বার্থে উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। রপ্তানিমুখী উৎপাদন বাড়াতে হবে।’

খালেদা জিয়ার আমলে গবেষণা কেন্দ্রগুলোকে সংস্কার ও আধুনিক করা হয়েছে। ধান চাল উৎপাদনের লক্ষ্যে সিরাজগঞ্জে বিদ্যুৎ প্রকল্প করেছেন। ফলে উত্তরবঙ্গের ৯০ শতাংশ এলাকায় ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি ট্যাক্স মওকুফ করেছিলেন। কৃষির সেচের জন্য খাল খনন করেছিলেন। ফলে খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ হয়েছিল।’

এ সময় তিনি বলেন, ‘ক্ষমতাসীন সরকারের ব্যর্থতার কারণে দেশে চরম সংকট দেখা দিয়েছে। জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। তাই দেশের মানুষ আজ জেড়ে উঠেছে। আমরা এ সরকারের অধীনে আর নির্বাচনে যাবো না। ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় আমাদের সমাবেশ। সেখান থেকে সরকারের পরিবর্তন ঘটবে সেটা আমরা বলতে পারি না, তবে দেশের মাুনষ সরকারের পরিবর্তন ঘটাবে এটা জানি। বিএনপির ওপর জনগণের প্রত্যাশা বেশি। তাই সরকারের পতন অবশ্যই হবে, এটা বেশি দূরে নয়।’

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর