আপনি পড়ছেন

সাংবাদিক পরিচয়ে কাতার বিশ্বকাপ কভার করতে গিয়েছিলেন ইসরায়েলি নাগরিক গাই হোচম্যান। তবে টুইটারে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে ইসরায়েলি সেনা ইউনিটের সাথে তার সম্পৃক্ততার কথা প্রকাশ হয়ে গেলে তিনি দ্রুত কাতার থেকে নিজ দেশে চলে যান। খবর মিডলইস্ট মনিটর।

guy hochmanগাই হোচম্যান

জানা গেছে, হোচম্যান সাংবাদিকতার পাশাপাশি মজার ভিডিও তৈরি করবেন, এমন একজন কৌতুক অভিনেতা হিসেবে কাতারে প্রবেশ করেছিলেন। ফেসবুকে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে তিনি দাবি করেন, শান্তি স্থাপনের জন্য কাতারে গেছেন তিনি।

কিন্তু ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সাংবাদিক সমর দাহমাশ-জাররাহ তার টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করে হোচম্যানের অতীত ফাঁস করে দেন। যেখানে দেখা গেছে, হোচম্যান কোনো সাংবাদিক বা ভিডিও নির্মাতা নন, বরং তিনি একজন ইসরায়েলি সৈনিক। তিনি যে সেনা ইউনিটের অংশ ছিলেন, সে ইউনিটটি হাজার হাজার ফিলিস্তিনি হত্যার জন্য দায়ী।

qatar world cup 3কাতার বিশ্বকাপ

সিএনএনের সাবেক কন্ট্রিবিউটর দাহমাশ-জারাহর টুইটারে ফলোয়ার সংখ্যা এক লাখ ৭১ হাজার। টুইটারে প্রকাশিত তার পোস্টে আরবি ভাষায় দেওয়া এক বার্তায় বলা হয়েছে, তাদের ফাঁস করে দিন, তারা অপরাধী। তার এ ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে যায়। অনেকেই ভিডিওটি দেখেন এবং শেয়ার করেন।

দাহমাশ-জারাহ তার ভিডিওতে বলেন, হোচম্যান নিজেকে একজন শান্তিপ্রণেতা হিসেবে পরিচয় দিলেও তিনি আসলে একজন খুনি সৈনিক। তিনি নাহাল ব্রিগেডের ৯৩২ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার ছিলেন। প্রথম ও দ্বিতীয় ইন্তিফাদার সময় তিনি হাজার হাজার ফিলিস্তিনিকে হত্যাকারী একটি ইউনিটে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

এই ভিডিও প্রকাশ করে দাহমাশ-জারাহ মন্তব্য করেন, এটিই ইসরায়েলের আসল চেহারা।

ইসরায়েলি মিডিয়ার তথ্যানুসারে, হোচম্যানের কাতার বিশ্বকাপের শেষপর্যন্ত সেখানে থাকার কথা ছিল। কিন্তু তার পরিচয় ফাঁস হয়ে গেলে তিনি গত সোমবার দ্রুত ইসরায়েলে ফিরে যান।

ফিফা বিশ্বকাপ চলাকালে ইসরায়েলের প্রতি আরবদের অনুভূতি পরীক্ষার জন্য অনেক ইসরায়েলি সাংবাদিক এবার উৎসাহের সাথে কাতারে ভ্রমণ করেছিলেন। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই তারা নিজেদের অবাঞ্ছিতরূপে পেয়েছেন। তারা হতবাক হয়ে দেখতে পেয়েছেন, অনেকে তাদের সাথে কথাও বলতে চায়নি। এমনকি অনেকেই তাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কাতার ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

ইসরায়েলি সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, কাতারে তাদের অবস্থান নিরাপদ নয়। ফলে তারা তাদের ইসরায়েলি পরিচয় গোপন করে সেখানে অবস্থান করছেন।