আপনি পড়ছেন

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসার সামনে চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। ৩ ডিসেম্বর, শনিবার রাতে এ চেকপোস্ট বসানো হয়। তবে হঠাৎ করে কেন এ চেকপোস্ট বসানো হলো সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানায়নি পুলিশ।

check postখালেদার বাসার সামনে চেকপোস্ট, শহরে ব্লক রেইড

এদিকে রাজধানীর গুলশান, তেজগাঁও ও মতিঝিলসহ বিভিন্ন স্থানে ব্লক রেইড শুরু করেছে পুলিশ।

ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, শনিবার রাত থেকে রাজধানীতে ব্লক রেইড শুরু হয়েছে।

বিমানবন্দর সড়কের কাকলী এলাকার কয়েকটি আবাসিক হোটেলে তল্লাশি অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মো. আবদুল আহাদ বলেছেন, বনানীর কাকলী এলাকায় জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরা অবস্থান করছেন, এমন সন্দেহে এখানে ব্লক রেইড চলছে।

বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আজম বলেন, বনানীর নর্থ সিটি হোটেলে জঙ্গিরা অবস্থান করছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি। এছাড়া রাজধানীর আরও কয়েকটি এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যার পর নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। বিস্ফোরণের ঘটনায় কাজ করছে মতিঝিল পুলিশ। বিভিন্ন স্থানে ব্লক রেইড দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া রাজধানীর তেজগাঁও এলাকাতেও চলছে ব্লক রেইড। রাত ১০টার পর মতিঝিল দৈনিক বাংলা মোড়ে হোটেল রহমানীয়াতেও অভিযান চালানো হয়।

রাতে মতিঝিল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইয়াসির আরাফাত জানান, এখন অভিযান চলছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

জানা গেছে, দৈনিক বাংলার মোড় সংলগ্ন এই বহুতল ভবনের বার এবং আবাসিক হোটেল উপরতলায় রয়েছে। সেখানে আইনশৃঙ্খলার ব্যত্যয় ঘটতে পারে এমন কোনো ব্যক্তি বা অপরাধী আছে কী না তা নিশ্চিত হতে পুলিশের এই অভিযান।

গত ২৯ নভেম্বর পুলিশ সদর দপ্তর থেকে এক আদেশে জানানো হয়, ১ থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশেষ অভিযান চালানো হবে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর। তবে ওই আদেশের সঙ্গে আজকের ব্লক রেইডের কোনো সম্পর্ক আছে কি না তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

আদেশে বলা হয়েছিল, আদালত থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় এই অভিযান পরিচালনা করা হবে। এছাড়া মহান বিজয় দিবস, বড়দিন এবং থার্টিফাস্ট নাইট উদযাপনের নিরাপত্তা নিশ্চিতে অভিযান চালাবে পুলিশ।

আদেশে বলা হয়, আবাসিক হোটেল, মেস, হোস্টেল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন জায়গায় অপরাধীরা লুকিয়ে থাকতে পারে এমন স্থানে অভিযান চালাবে পুলিশ।