আপনি পড়ছেন

উগ্রবাদী তৎপরতা ঠেকাতে ব্যতিব্যস্ত নাইজেরীয় সেনাবাহিনীর যখন সুখবর হয়ে এসেছে দুই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর পারস্পরিক দন্দ্ব। নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বোর্নো রাজ্যের সামবিসা ফরেস্টে বোকো হারাম সন্ত্রাসীরা গতকাল আইএসের একটি ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে ৫৫ জনকে হত্যা করেছে। এদের মধ্যে ৩৩ জন নারী, যারা আইএস সন্ত্রাসীদের স্ত্রী। কাছাকাছি অবস্থান নিয়ে দুই সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সংঘর্ষ পর্যবেক্ষণ করছে নাইজেরীয় বাহিনী। কেনিয়ার সংবাদ পোর্টাল দ্য ইস্ট আফ্রিকান এ কথা জানিয়েছে।

nigeria army সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে থাকে নাইজেরিয়ার সেনাবাহিনী

প্রতিবেদনে বলা হয়, নাইজেরীয় সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে সামবিসা ফরেস্টে নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকা বাড়াতে তৎপর হয়ে উঠেছে আইএস ও বোকো হারাম। প্রভাব বিস্তারের দন্দ্ব থেকে গত শনিবার দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হলে আইএসের হাতে বোকো হারামের কমান্ডার মালাম আবুবাকার নিহত হন।

এর আগে নিকটবর্তী মান্দারা পর্বত এলাকার বোকো হারাম নেতা আলী গুলদে কয়েকশ যোদ্ধাসহ অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সামবিসা ফরেস্টে অবস্থানরত আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য অগ্রসর হন। বনাঞ্চলের কাছে ইউহি শহরে পৌঁছে তারা এইএস সদস্যদের আলোচনার প্রস্তাব দিয়ে বার্তা পাঠান। আইএস প্রতিনিধিরা আালোচনার জন্য অগ্রসর হলে আলী গুলদে ও তার দল পথে অবস্থান নেন।

বোকো হারামের অ্যামবুশে আইএসের ১২ জন নিহত হন। এ সময় আইএসের ব্যবহৃত ভারি মেশিনগান বোঝাই চারটি টয়োটা হাইলাক্স ট্রাক বোকো হারামের দখলে যায়। বাড়তি অস্ত্র পেয়ে বলীয়ান বোকো হারাম পরবর্তী কয়েক ঘন্টায় উকুবা, আরা, সাবিল হুদা ও ফারিসু এলাকায় আইএস অবস্থানে হামলা চামলা চালিয়ে আরও ২৩ জনকে হত্যা করে।

এর জেরে বানা চিঙ্গোরি নামে আইএসের এক কমান্ডার যুদ্ধ ঘোষণা করেন এবং ফারিসুতে বোকো হারাম অবস্থানে হামলা চালান। এ সময় বোকো হারামের ১৫ সদস্য নিহত হন এবং তাদের ব্যবহৃত সাতটি মোটরসাইকেল আইএসের নিয়ন্ত্রণে যায়। হামলা শেষে আইএস দলটি পিছু হটে এবং প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে গারিন আবাহ এলাকায় অবস্থান নিয়ে বোকো হারামের অপেক্ষা করতে থাকে। বোকো হারাম সদস্যরা প্রতিপক্ষের উপর পাল্টা হামলা চালানোর পরিবর্তে পথ ঘুরে আইএসের পুরনো ক্যাম্পে যায় এবং সেখানে থাকা ৩৩ নারীকে হত্যা করে।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক জাগাজোলা মাকামা বলেছেন, ইউহি ক্যাম্পে দুই পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হয়, যা এখনো চলছে। মঙ্গলবারও দুই পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত ছিল। নাইজেরীয় সেনাবাহিনী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে।

নাইজেরীয় সেনাবাহিনীর মিডিয়া অপারেশনস ডিরেক্টর মেজর-জেনারেল মুসা দানমাদামি বলেছেন, সৈন্যরা বিভিন্ন স্থানে অ্যামবুশ, অভিযান ও তল্লাশি চালিয়ে বোকো হারাম ও আইএস সন্ত্রাসীদের হত্যা করেছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর