advertisement
আপনি পড়ছেন

টানা চার বছর বাংলাদেশ জাতীয় দলের হেড কোচ ছিলেন জেমি সিডন্স। ২০০৭ থেকে ২০১১ সালের পর স্বদেশে ফিরে গিয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেটে সিডন্সের অধ্যায় নতুন করে আবারও শুরু হচ্ছে। সম্প্রতি তাকে ব্যাটিং কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বিসিবি।

jemi sidonse bd coachজেমি সিডন্স, ফাইল ছবি

টাইগারদের সঙ্গে নতুন ভূমিকায় কাজ করতে উন্মুখ সিডন্স। ইতোমধ্যে বাংলাদেশের ভিসাও পেয়ে গেছেন তিনি। শনিবার এক ভিডিও বার্তায় ৫৭ বছর বয়সী এই অস্ট্রেলিয়ান বলেছেন, ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই ঢাকায় আসছেন তিনি।

দুই বছরের চুক্তিতে আসছেন জানিয়ে সিডন্স বলেন, ‘বাংলাদেশের ভিসা পেয়ে গেছি আমি। আমার পরবর্তী কোচিং অধ্যায় হবে সেখানে। আশা করছি, দুই বছর কাজ করবো। অক্টোবরে আবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য ফিরবো অস্ট্রেলিয়ায়। বাংলাদেশে তরুণ প্রতিভাবান ব্যাটারদের সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে রয়েছি। যারা জাতীয় দলে খেলছে এবং জুনিয়র ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামে আছে। জুনিয়র ক্রিকেটারদের নিজেদের খেলার মান বাড়াতে সাহায্য করতে ভালোবাসি আমি।’

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই কাজ শুরু করতে চান সিডন্স। তিনি বলেন, ‘এই মাসের শেষদিকের টিকিট করবো। আশা করছি, ফেব্রুয়ারির ১ তারিখ থেকেই কাজ শুরু করতে পারবো। বাংলাদেশে আগেও কাজ করেছি। তখন দারুণ সময় কেটেছে। এবারও ভালো হবে আশা করছি।’

ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের ধারাবাহিকতার অভাব দূর করাই সিডন্সের মূল টার্গেট। এই অস্ট্রেলিয়ান বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু ভালো জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে। এছাড়া সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলো টেস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের মাটিতে পাওয়া জয়টি। প্রথম ম্যাচে তারা সবকিছুই ভালো করেছে। ব্যাটিং দুর্দান্ত ছিল, বোলিংয়েও ভালো করেছে। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে আবার সব উল্টে গেলো। আমি জানি না কেনো এমন হয়েছে। তবে এ বিষয়টাই হয়, কিছুটা অধারাবাহিক। আশা করি, সেখানে গিয়ে এ বিষয়ে সাহায্য করতে পারবো।’

তবে নিজের ভূমিকা এখনও অজানা সিডন্সের। তিনি বলেন, ‘আমি জাতীয় দলের ব্যাটারদের সঙ্গে কাজ করবো, পাশাপাশি তরুণ ব্যাটারদের নিয়েও কাজ করবো। আমি শতভাগ নিশ্চিত নই আমার সিংহভাগ সময় কাদের সঙ্গে কাটবে। তবে এটি নিশ্চিত প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের নিয়ে কাজ করবো।’