advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 14 মিনিট আগে

গ্রিক প্রধানমন্ত্রী অ্যালেক্সিস সিপ্রাস অভিযোগ করেছেন, তুর্কি যুদ্ধবিমান তাকে বহনকারী হেলিকপ্টারকে ‘পথরোধ’ করেছে। তবে আঙ্কারা বলছে, তাদের বিমান এ ধরনের কোনো প্রচেষ্টা চালায়নি।

greek pm siprash

সিপ্রাস বলছেন, ১৮২১ সালে অটোমান সাম্রাজ্য (উসমানী খিলাফত) বিরোধী অভ্যুত্থানের বার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার গ্রিক দ্বীপ আগাথোনিসিতে যাচ্ছিলাম। এ সময় তুর্কি যুদ্ধবিমান তাকে বহনকারী হেলিকপ্টারকে হয়রানি করে। ভূমধ্যসাগরের তুর্কি উপকূল থেকে মাত্র কয়েক মাইল দূরে ওই দ্বীপটির অবস্থান।

গ্রিক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি যে বার্তাটি তাদের (আঙ্কারা) তাদের দিতে চাই তা হলো- এ ধরনের বোকামির কোনো অর্থ হয় না। তারা শুধু শুধু পেট্রোল খরচ করেছে। আমাদের জাতীয় অখণ্ডতা রক্ষায় আমরা সর্বদা সেখানে (দ্বীপ) থাকব।’

গ্রিক সামরিক বাহিনীর এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, গ্রিক এফ-১৬ যুদ্ধবিমান সিপ্রাসের হেলিকপ্টার থেকে প্রায় ৪ মাইল দূরে তুর্কি যুদ্ধবিমানের পথরোধ করেছে।

তবে তুর্কি নিরাপত্তা বাহিনীর একটি সূত্র বলছে, তুর্কি যুদ্ধবিমান নিয়মিত মিশনের অংশ হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

সূত্রটি বলেছে, ‘আজ (সোমবার) গ্রিক প্রধানমন্ত্রীর কর্মকাণ্ডের সময় তুরস্কের যু্দ্ধবিমান পথরোধের কোনো প্রচেষ্টা চালায়নি।’

প্রসঙ্গত, তুরস্ক ও গ্রিস উভয়ই সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য রাষ্ট্র। কিন্তু জাতিগত বিভাজনকে কেন্দ্র করে দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘকালের কিছু সমস্যা বিদ্যমান রয়েছে।

সম্প্রতি আটজন তুর্কি সেনাকে দেশটির কাছে হস্তান্তর করতে গ্রিস অস্বীকৃতি জানানোয় দুই দেশের মধ্যে অস্বস্তি আরো বেড়েছে। আঙ্কারার অভিযোগ, ২০১৬ সালে দেশটিতে যে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থান হয় তার সঙ্গে ওই সেনাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

sheikh mujib 2020