advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের লোকসভায় সর্বমহলের প্রবল বিরোধিতা সত্তেও বিজেপি সরকার বিতর্কিত মুসলিমবিরোধী নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস করার পর দেশটির বিভিন্ন রাজ্য উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। সোমবার রাতে পাস হওয়া বিলের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিক্ষোভে উত্তাল আসাম ও ত্রিপুরা। ভারতের উত্তর-পূর্বের বিভিন্ন রাজ্যেও বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

uttal tripuraউত্তাল ত্রিপুরা

এর মধ্যেই উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ছাত্র সংগঠন ১১ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে। এ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে গতকাল বিকেলে বিজেপি সরকার-বিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে আগরতলায়। এর পরপরই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৪৮ ঘণ্টার জন্য মোবাইলের ইন্টারনেট ও এসএমএস সেবা বন্ধ করে দেয় ত্রিপুরা সরকার।

সরকারি এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এএনআই'র এক প্রতিবেদনে বলা হয, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা চলছে- এমন তথ্য পাওয়ার পরই সাময়িকভাবে মোবাইল ইন্টারনেট ও এসএমএস সেবা বন্ধ করে দেয়া হয়।

এদিকে ত্রিপুরার বিভিন্ন এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভকারীরা সড়কে অবস্থান নিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। একইভাবে আসামের গুয়াহাটিসহ রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে ত্রিপুরা ও আসামের জনজীবন থমকে দাঁড়িয়েছে।

nrc asam protest1উত্তাল আসাম

প্রসঙ্গত, ১৯৫৫ সালে পাশ হওয়া নাগরিকত্ব আইনে উল্লেখ আছে, অন্য দেশ থেকে ভারতে আসা কেউ যদি নাগরিকত্ব চায় সেক্ষেত্রে তাকে কমপক্ষে ১১ বছর এ দেশে বসবাস করতে হবে। পাশাপাশি এর পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ ও নথিপত্র উপস্থাপন করতে হবে।

কিন্তু নতুন করে সংশোধন হওয়া এ বিলটিতে বলা হয়েছে, ভারতে টানা ৫ বছর ধরে বসবাস করা অমুসলিমরা নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য অবেদন করতে পারবেন।

এদিকে বিজেপি সরকারের তীব্র সমালোচনা করে পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, যদি সব সম্প্রদায়ের মানুষকে নাগরিকত্ব দেয়া হয়, তাহলে সেটা মেনে নেয়া যায়। কিন্তু যদি ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য করা হয়, তা মেনে নেয়া হবে না।

sheikh mujib 2020