advertisement
আপনি দেখছেন

ইরাকের রাজধানী বাগদাদে শুরু হওয়া যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী বিক্ষোভ জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। ইরাকিদের স্লোগানে এখন কাঁপছে গোটা শহর। গত কয়েক দশকে দেশটিতে এত বড় বিক্ষোভ আর দেখা যায়নি বলে জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

anti us protest in bagdad

শুক্রবার দেশটির শিয়া সম্প্রদায়ের প্রভাবশালী নেতা মুক্তাদা আস-সাদরের ডাকা ‘মিলিয়ন-ম্যান মার্চ’ নামের এই বিক্ষোভে যোগ দিতে দুপুরের আগ থেকেই বাগদাদে জড়ো হতে থাকেন ইরাকিরা। রাজধানীর বাইরেও বিভিন্ন প্রদেশ থেকে বিক্ষোভে যোগ দেন শিয়া, সুন্নি, আরব, কুর্দিসহ দেশের সকল গোত্র ও সম্প্রদায়ের মানুষ। দুপুর নাগাদ সেখানে জড়ো হন কয়েক লাখ ইরাকি।

বিক্ষোভে ইরাকিরা ‘যুক্তরাষ্ট্র নিপাত যাক’, ‘ইসরায়েল নিপাত যাক’, ‘ইরাক থেকে মার্কিন সেনারা বের হয়ে যাক’ এসব স্লোগান দিয়ে রাজপথ প্রকম্পিত করতে থাকেন।

দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানায়, সম্প্রতি ইরাকে অবৈধ সামরিক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে আমেরিকা। তাই এর প্রতিবাদে যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী এ বিক্ষোভের ডাকা দিয়েছেন মুক্তাদা আস-সাদর।

গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে মার্কিন বিমান হামলায় ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের অভিজাত কুদস বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল কাশেম সোলায়মানি নিহত হন। এতে ইরাকের মিলিশিয়া নেতা আবু মাহদি আল-মুহানদিসও নিহত হন। এই হত্যাকণ্ডের প্রতিশোধ নিতে ইরান ইরাকে থাকা বিভিন্ন মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়। ফলে দুই পক্ষের যুদ্ধাবস্থা দেখা দেয়। আর এর জন্য যুক্তরাষ্ট্রকেই সম্পূর্ণ দায়ী করছে বাগদাদ।

এ মহাবিক্ষোভকে ১৯২০ সালে ইরাকে হওয়া ইসলামি বিপ্লব বা গণ-অভ্যুত্থানের সাথে তুলনা করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। সে সময় বাগদাদ ও তেহরানের প্রখ্যাত শিয়া ও সুন্নি আলেমদের আহ্বানে ইরাকের সর্বত্র ব্রিটিশবিরোধী গণ আন্দোলন শুরু হয়।

sheikh mujib 2020