advertisement
আপনি দেখছেন

দিল্লিতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে সহিংসতার কারণে কানাডার নাগরিকদের ভারত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দেশটির সরকার। আজ সোমবার ভারতীয় গণমাধ্যমে এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে।

canadian citizens prohibits from traveling to india

এতে বলা হয়, কানাডা সরকার গত শুক্রবার ভারত ভ্রমণে দেশটির নাগরিকদের নিষেধ করেছে। এ বিষয়ে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, নিরাপত্তার স্বার্থে কানাডার কেউ ভারতে যাবে না। সেখনকার গুজরাট, জম্মু-কাশ্মির, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, আসাম ও উত্তর-পূর্ব ভারতের অন্যান্য রাজ্য ভ্রমণে সতর্কতা জারি করা হলো।

এদিকে, দিল্লিতে সাম্প্রদায়িক সংঘর্ষের ঘটনায় নর্দমার ড্রেন থেকে আরো চার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৪৬ জনে। সহিংসতা বন্ধ হলেও লাশ উদ্ধারের ঘটনায় নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পুরো শহরে।

গতকাল রোববার সন্ধ্যায় উত্তর-পূর্ব দিল্লির গোকুলপুরী এলাকার দুটি ড্রেন থেকে তিনটি লাশ এবং শিব বিহারের অপর একটি ড্রেন থেকে আরো একটি লাশ উদ্ধার করা হয়।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, লাশ উদ্ধারের ঘটনায় নতুন করে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়তে পারে- এমন আশঙ্কায় পুরো শহরের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। পশ্চিম দিল্লির তিলকনগর ও রাজৌরি গার্ডেনে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে মেট্রো স্টেশন বন্ধ করে দেয়া হয়। পশ্চিম উত্তমনগর, তুঘলকাবাদ, বদরপুর, সুরজমল স্টেডিয়াম, নাঙ্গলোই মেট্রো স্টেশনও সাময়িক বন্ধ থাকে।

ভয়াবহ পরিস্থিতির আশঙ্কায় শহরের দোকানপাট ও শপিংমলগুলো বন্ধ করে মানুষজন বাসায় ফিরে যায়। রাস্তাঘাট মুহূর্তের মধ্যে ফাঁকা হয়ে যায়। পুরো শহরে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দারাও রাত জেগে পাহারা দেয়।

sheikh mujib 2020