advertisement
আপনি দেখছেন

যে কয়জন বিশ্বনেতা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সবচেয়ে বেশি সক্রিয়, তার মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অন্যতম। কিন্তু নানা বিতর্কের মধ্যে তিনি এবার সামাজিক মাধ্যম ছাড়ার চিন্তা-ভাবনা করছেন বলে জানিয়েছেন।

norendro modi 2

গতকাল সোমবার রাত ৯টায় টুইটারে দেয়া এক বার্তায় মোদি জানান, রোববার ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবের সব অ্যাকাউন্ট ছাড়ার বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করছি, পরের পোস্টে জানানো হবে।

মোদির এ পোস্টের পর পরই তার সমালোচনায় মুখর হয়েছেন দেশটির বিরোধীদলীয় নেতারা। বিজেপি সরকারের প্রধান বিরোধী পক্ষ কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধী কটাক্ষ করে বলেছেন, সামাজিক মাধ্যম নয়, ঘৃণা ছাড়ুন।

প্রসঙ্গত, টুইটারে আলোচিত মোদির ফলোয়ারের সংখ্যা ৫ কোটি ৩ লাখ, ফেসবুকে ৪ কোটি ৪০ লাখ, ইনস্টাগ্রামে ৩ কোটি ৫২ লাখ এবং ইউটিউবে সাড়ে ৪০ লাখ।

কিন্তু দেশটিতে সংশোধিত সাগরিকত্ব আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) নিয়ে চলমান আন্দোলন-সহিংসতার মধ্যে হঠাৎ করে মোদি কেন সামাজিক মাধ্যম ছাড়ার কথা বললেন, তা স্পষ্ট করেননি তিনি।