advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় কার্যকর হিসেবে প্রমাণিত ওষুধ রেমডিসিভির গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে এসেছে। বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রও এই ওষুধের মাধ্যমে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে আগ্রহী। এবার ইউরোপের দেশগুলো সেই সুযোগ পেয়ে গেল। কারণ ইউরোপীয় কমিশন শর্ত সাপেক্ষে রেমডিসিভির ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে।

remedisivir medicineরেমডিসিভির ওষুধ

ইয়েনি সাফাকের বরাতে জানা যায়, এই ওষুধটি প্রস্তুত করেছে মার্কিন প্রতিষ্ঠান গিলিয়াড সায়েন্সেস। যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) অনুমোদন দেয়ার পরই তারা রেমডিসিভিরের উৎপাদন শুরু করে দেয়। গত সপ্তাহে তারা প্রথমবারের মতো চালান পাঠাতে শুরু করে।

ইউরোপে এই ওষুধের ব্যবহার প্রসঙ্গে ইউরোপীয় কমিশনের এক কর্মকর্তা বলেন, এটিই হবে প্রথম কোনো ওষুধ, যা করোনাভাইরাসের রোগীদের চিকিৎসায় অনুমোদন পাবে। এর ব্যবহার অবশ্য সব রোগীদের হবে না। শুধু গুরুতর অসুস্থদের ওপর এর প্রয়োগ হবে।

eu commission hqইউরোপীয় কমিশনের সদরদপ্তর

তিনি বলেন, এতে কোনো অসঙ্গতি আছে কি না তা আমাদের গবেষকরা খতিয়ে দেখছেন। কোনো অসঙ্গতি পেলেই জানানো হবে এবং সিদ্ধান্ত পরিবর্তিত হবে।

তুর্কি গণমাধ্যমটি বলছে, ইউরোপীয় কমিশন থেকে গিলিয়াড সায়েন্সেসের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত আছে। যদি আলোচনা সফল হয়, তাহলে মহাদেশটির ২৭টি দেশে পৌঁছে যাবে রেমডিসিভির। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোম্পানিটির চুক্তি।

কারণ চুক্তি অনুযায়ী জুলাই মাসে গিলিয়াড সায়েন্সেস যে পরিমাণ রেমডিসিভির উৎপাদন করবে, তার ৯০ শতাংশই নিয়ে নেবে মার্কিন সরকার। অন্যান্য রাষ্ট্র পাবে মাত্র ১০ শতাংশ। এ কারণে ইউরোপের দেশগুলো এই ওষুধ পাবে কি না তা নিয়েও শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে।

sheikh mujib 2020