advertisement
আপনি দেখছেন

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ প্রতিষেধক আবিষ্কারের চেষ্টা করছে। এ প্রতিযোগিতায় অনেকটা এগিয়ে আছে চীনের বেশ কয়েকটি কোম্পানি। চলতি মাসের মধ্যে কার্যকর টিক আনার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে রাশিয়াও। তবে এই দুই দেশের তৈরি কারা সম্ভাব্য করোনার ভ্যাকসিনের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ও হোয়াইট হাউসের উপদেষ্টা ড. অ্যান্থনি ফুসি।

dr fusiযুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ও হোয়াইট হাউসের উপদেষ্টা ড. অ্যান্থনি ফুসি- ফাইল ছবি

তিনি বলেন, চীন ও রাশিয়ার তৈরি করোনার ভ্যাকসিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহার করা হবে না। কারণ এই দুই দেশের পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা পশ্চিমা দেশগুলোর তুলনায় অনেকটা অস্বচ্ছ। তারা ভ্যাকসিন আনার প্রতিযোগিতায় ঠিকভাবে এর পরীক্ষা করছে না। গতকাল শুক্রবার মার্কিন কংগ্রেসের এক শুনানিতে অংশ নিয়ে ড. অ্যান্থনি ফুসি এসব কথা বলেন।

কাউকে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার আগে চীন ও রাশিয়া ঠিকভাবে এর পরীক্ষা করবে আশা করে তিনি আরো বলেন, দেশ দুটি সঠিকভাবে পরীক্ষা করার আগেই ভ্যাকসিন বিতরণের প্রস্তুতির দাবি করছে। এটিই সবচেয়ে বড় সমস্যা।

corona vaccine 1করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিন- প্রতীকী ছবি

ফুসি আরো বলেন, চলতি বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনার ভ্যাকসিন বাজারে আসতে পারে। বিজ্ঞানীরা দ্রুতগতিতে ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। মডার্না যে সম্ভাব্য প্রতিষেধক তৈরি করেছে, সেটির প্রথম ধাপের পরীক্ষায় সন্তোষজনক ফল পাওয়া গেছে।

আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, করোনাভাইরাস আক্রান্ত ও মৃতের দিক দিয়ে গোটা বিশ্বের মধ্যে শীর্ষ অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত সাড়ে ৪৭ লাখের বেশি মানুষ প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে ১ লাখ ৫৭ হাজার ৮৯৮ জন।

sheikh mujib 2020