advertisement
আপনি দেখছেন

আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে নাগর্নো-কারাবাখ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে চলমান যুদ্ধে ৫ হাজারের মতো মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যকার যুদ্ধ ইতোমধ্যে চতুর্থ সপ্তাহে গড়িয়েছে।

vladimir putin newভ্লাদিমির পুতিন

মস্কো টাইমস বলছে, বৃহস্পতিবার দেওয়া এক ভাষণে পুতিন বলেন, তাদের কাছে যে তথ্য-উপাত্ত রয়েছে, সে অনুযায়ী উভয়পক্ষের প্রায় ২ হাজার করে মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। আর সব মিলিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ৫ হাজারের কাছাকাছি।

রুশ প্রেসিডেন্ট আরো জানিয়েছেন, চলমান যুদ্ধের মধ্যেও তিনি আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ এবং আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিয়ানের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন। দিনে কয়েকবার তাদের সঙ্গে কথা বলেন বলেও জানান তিনি।

armenia azerbaijan peopleআজারবাইজানের বেসামরিক অঞ্চলে আর্মেনিয়ার হামলা

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী নাগর্নো-কারাবাখ অঞ্চল আজারবাইজানের ভূখণ্ড। কিন্তু ১৯৯১ সালে আর্মেনীয় সেনাবাহিনীর সমর্থনে দেশটির বিচ্ছিন্নতাবাদীরা সেটি দখল করে নেয়। যার কোনো স্বীকৃতি আজ পর্যন্ত মেলেনি। ওই ঘটনার পর থেকে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে।

এর মধ্যেই সম্প্রতি আর্মেনিয়া সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীরা আজারবাইজানের সেনাদের লক্ষ্য করে হামলা চালায়। আজেরি সেনারা এর জবাব দিলে গত ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে দুই পক্ষের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়।

পুতিনের আহ্বানে সাড়া দিয়ে রাশিয়ার মধ্যস্থতায় গত ৯ অক্টোবর মস্কোয় বৈঠক করেন আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। সেখানে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে উভয়পক্ষ যুদ্ধবিরতি রাজি হলেও শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে। এর পর দ্বিতীয়বার যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয় উভয়পক্ষ। কিন্তু মাত্র কয়েক মিনিটের মাথায় তা ভেস্তে যায়। এর জন্য একে অপরকে দায়ী করে আসছে।

এ অবস্থায় আবারো দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মস্কোয় গেছেন বলে জানা গেছে। সেখানে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তাদের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। তবে সেটা একত্রে নাকি আলাদাভাবে হবে তা স্পষ্ট নয়। এর শুক্রবার ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওর সঙ্গে আর্মেনিয়া ও আজেরি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

sheikh mujib 2020