advertisement
আপনি দেখছেন

পাকিস্তানে ক্রমবর্ধমান ধর্ষণের ঘটনা ঠেকাতে কঠোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ ব্যাপারে নতুন একটি আইনের খসড়া তৈরি করা হয়েছে। মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রায় সব মন্ত্রীই এই আইনের ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছেন। তবে সংসদ অধিবেশন না থাকায় এখনই তা পাস করা সম্ভব হচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আশা করছেন, আইনটি কার্যকর করা শুরু হলে ধর্ষণ কমে যাবে।

imran khan 19ইমরান খান

নতুন এই আইনের খসড়ায় ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি শুধু মৃত্যুদণ্ডই নয়, প্রকাশ্যে মানুষের সামনে ফাঁসির বিধান রাখা হয়েছে। এছাড়া একাধিক শাস্তির মধ্যে রয়েছে ধর্ষককে নপুংসক করে দেওয়া। জানা যায়, রাসায়নিকভাবে নপুংসক করে দেওয়ার এই আইনের ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

পাকিস্তানের আইন ও বিচারমন্ত্রী ড. ফারুগ নাসিম বলেন- আমরা মনে করছি, ধর্ষককে নপুংসক করে দেওয়াটা একটা আদর্শ শাস্তি। তবে পার্লামেন্টে এ নিয়ে আরো বিশ্লেষণ হবে। আমরাই এই শাস্তির কথা বলছি, ব্যাপারটা এমন নয়; যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশেই এই শাস্তির বিধান রয়েছে। শিগগিরই আইনটি পার্লামেন্টে তোলা হবে। তেহরিক-ই-ইনসাফ সরকার নারীর নিরাপত্তায় সম্ভাব্য সবকিছু করবে।

mass raped india

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলছেন, নাগরিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা সরকার হিসেবে আমাদের দায়িত্ব। তাই এ ব্যাপারে পিছপা হবো না। নারী নির্যাতনের বিচারের ব্যাপারে কোনো গাফিলতি সহ্য করা হবে না। আমি নির্যাতিত নারীদের প্রতি আহ্বান জানাতে চাই, আপনারা নির্ভয়ে অভিযোগ দায়ের করতে পারেন, আপনার এবং পরিবারের পরিচয় গোপন রাখার দায়িত্ব সরকারের।

sheikh mujib 2020