advertisement
আপনি দেখছেন

জম্মু ও কাশ্মিরে ভারতীয় বাহিনীর নৃশংসতা দিন দিন বাড়ছে। শিক্ষিত কাশ্মিরি যুবকরাই এই বাহিনীর দ্বারা সংগঠিত গণহতার প্রধান টার্গেট। সম্প্রতি পার্লামেন্ট ভবনে সিনেটের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাদিক সানজারানির সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন আজাদ কাশ্মিরের প্রধানমন্ত্রী সরদার আব্দুল কাইয়ুম খান নিয়াজি।

ajk prime minister abdul qayyum niaziআজাদ কাশ্মিরের প্রধানমন্ত্রী সরদার আব্দুল কাইয়ুম খান নিয়াজি

তিনি বলেন, কাশ্মিরি যুবকরা ভারতের কবল থেকে মুক্তির জন্য অকাতরে আত্মত্যাগ করছে। কিন্তু কাশ্মিরি জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী কাশ্মির সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত কোনো চিরস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়।

সিনেটের চেয়ারম্যান সাজিদ সানজারানি এ সময় ভারতীয় বাহিনীর হাতে কাশ্মিরিদের ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং পরিকল্পিত হত্যার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মিরে পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর অন্যায় এনকাউন্টারে কাশ্মিরের মুসলিম যুবকদের হত্যা করা হচ্ছে। এমনকি তাদের লাশ পর্যন্ত উত্তরাধিকারীদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে না।

kashmir muslimভারত অধিকৃত কাশ্মিরে এটি স্বাভাবিক দৃশ্য

সানজরানি আরো বলেন, পাকিস্তানি জাতি এবং সরকার সবসময় কাশ্মিরি ভাইদের পাশে রয়েছে। কাশ্মিরিদের আত্মনিয়ন্ত্রণের মৌলিক অধিকার অর্জনের জন্য তাদের সংগ্রামে অব্যাহত সমর্থন দিয়ে যাবে পাকিস্তান। ভারতীয় বাহিনীর এ ধরনের নৃশংস অত্যাচারের তীব্র নিন্দা জানাই আমরা।

উল্লেখ্য, বেশ কিছুদিন ধরে ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে এনকাউন্টারে কাশ্মিরি মুসলিমদের হত্যার পরিমাণ বেড়ে গেছে। জঙ্গী আখ্যা দিয়ে তারা বেশ কিছু নিরীহ বেসামরিক লোককে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছে নিহতদের স্বজনরা। এমনকি হত্যার পর নিহতদের লাশও পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে না। এ নিয়ে সেখানে বিক্ষোভ দানা বেধে উঠছে।