advertisement
আপনি দেখছেন

উত্তর কোরিয়ার একজন স্কুলছাত্র মৃত্যু‌দণ্ডের মুখোমুখি হয়েছে। তার অপরাধ সে স্কুইড গেমের কপি দেশে গোপনে আমদানি করেছে ও তা বিক্রি করেছে। তাকে ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে। নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

north korea netflix squid game capital punishmentউত্তর কোরিয়ায় ফায়ারিং স্কোয়াডে স্কুলছাত্র!

খবরে বলা হচ্ছে, উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষ ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভের মাধ্যমে ভিডিও গেমটি ছড়ানোর অপরাধে সাত স্কুলছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে। রেডিও ফ্রি এশিয়া জানাচ্ছে, একজন ছাত্র যে পাচারকারীর কাছ থেকে একটি ড্রাইভ কিনেছিল তাকে জেলখানায় রাখা হয়েছে। ফায়ারিং স্কোয়াডে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে।

অন্য ছয়জন যারা ভিডিও দেখেছিল তাদের পাঁচ বছরের কঠোর শ্রমের শাস্তি দেওয়া হয়েছে। একই অপরাধের শাস্তি ভোগ করতে হয়েছে স্কুলটির শিক্ষকদেরও। তাদের স্কুল থেকে বরখাস্ত করে দূরবর্তী খনিতে নির্বাসনে পাঠানো হয়।

kim jong un 19উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন, ফাইল ছবি

স্থানীয় সূত্র জানায়, পাচারকারী চীন থেকে ভিডিও গেমের নেটফ্লিক্স শো-এর একটি কপি নিয়ে আসে এবং তার একটি সংস্করণ বিক্রি করে। আর এ অপরাধে তাকে ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে। এই স্কুলছাত্রটি গোপনে দক্ষিণ কোরিয়ার স্কুইড গেম সংবলিত ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ কিনেছিল এবং ক্লাসে তার সেরা বন্ধুদের একজনের সঙ্গে দেখেছিল।

ভিডিওটি আরও কয়েকজন দেখার পর তারা আগ্রহী হয়ে উঠে। কিন্তু অবৈধ ভিডিও ধরতে পারদর্শী এমন সরকারি স্ট্রাইক ফোর্স তাদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বক্তব্য, ওই ভিডিও ১৮ বছরের কম বয়সীদের প্রতিক্রিয়াশীল চিন্তায় উদ্বুদ্ধ করছে, যা সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের মতোই কাজ করে। যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

এ ঘটনার পর থেকে উত্তর কোরিয়ায় বাড়ি বাড়ি অভিযান শুরু হয়েছে। বিদেশি মিডিয়ার প্রতিনিধিত্ব করে এমন ডিভাইস থাকলে তাকেও ধরা হচ্ছে। উত্তর হামগিয়াংয়ের একজন বাসিন্দা বলছেন, আবাসিক বাসিন্দারা আতঙ্কে রয়েছে। কারণ স্টোরেজ ডিভাইস কেনা বা বিক্রি করার জন্য তাদের নির্দয়ভাবে শাস্তি দেওয়া হবে।