advertisement
আপনি পড়ছেন

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের ডেল্টা বা ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট মোকাবেলায় যেসব পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে, নতুন করে শনাক্ত হওয়া ভয়ংকর ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রমনের বিরুদ্ধেও সেগুলো কার্যকর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও এ তথ্য জানিয়েছেন।

omicron covid 19 virusকরোনার ওমিক্রন টেস্ট, ফাইল ছবি

সংস্থাটির পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন। পাশাপাশি তারা সব দেশকে এ ব্যাপারে যথাযথ প্রস্তুতি গ্রহণ করতে বলেছেন। আজ শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর, ডব্লিউএইচও-এর আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেশি কাসাই সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলা থেকে সম্প্রসাচিত এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে ড. তাকেশি কাসাই বলেন, কয়েকটি আঞ্চলিক দেশে ওমিক্রমন বাড়লেও, অন্য অনেক দেশেই কোভিড-১৯ আক্রান্ত ও মৃত্যু কমছে। তাই আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

takeshi kasai who omicronবিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক পরিচালক ড. তাকেশি কাসাই

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই কর্মকর্তা বলেন, সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা গেলে ভাইরাসটির আগমণ বিলম্বিত করা যেতে পারে এবং এতে সময়ও পাওয়া যেতে পারে। তবে নতুন করে যাতে আক্রান্ত বাড়তে না পারে সেজন্য প্রত্যেক দেশ ও প্রতিটি জনগোষ্ঠীকে অবশ্যই প্রস্তুত থাকতে হবে।

ড. তাকেশি কাসাই বলেন, এসব কিছুর মধ্যেও ইতিবাচক খবর হলো যে, এখন পর্যন্ত আমরা ওমিক্রন নিয়ে যেসব তথ্য পাচ্ছি, তাতে আমাদের প্রতিক্রিয়ার দিক বদলানোর প্রয়োজন পড়বে না। অর্থাৎ ডেল্টা মোকাবেলায় যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে সেটা ওমিক্রনের বিরুদ্ধেও কাজে লাগবে।

পাশাপাশি তিনি এ কথাও বলেন যে, এখনো ওমিক্রন নিয়ে খুব বেশি কিছু জানা যায়নি। তারপরও এটিকে উদ্বেগজনক হিসেবেই চিহ্নিত করা হয়েছে। ড. তাকেশি কাসাই এর ব্যাখ্যায় বলেন, অনেক বেশি রূপান্তরিত হয়েছে এই ভ্যারিয়েন্টটি। প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী ধারণা করা হচ্ছে, আগের ভ্যারিয়েন্টগুলোর চেয়ে এটি বেশি সংক্রামক হতে পারে। তবে এটি নিয়ে আরো বেশি বেশি পরীক্ষা ও পর্যবেক্ষণ দরকার।