advertisement
আপনি পড়ছেন

মসজিদ ও মুসলিম স্থাপনাগুলোকে নিয়ে পুরো ভারতজুড়েই বিতর্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে। আদালত কর্তৃক বারবার সতর্ক করে দেয়ার পরও এ ধারবাহিকতায় ছেদ পড়ছে না। এবার বিতর্ক তৈরি করা হয়েছে কর্ণাটকের বহু বছরের পুরোনো টিপু সুলতান মসজিদকে ঘিরে। দাবি করা হচ্ছে, একসময় এখানে হনুমান মন্দির ছিল। সেটি ভেঙে মসজিদ তৈরি করা হয়েছে।

tipu sultans masjidটিপু সুলতান মসজিদ

কয়েকদিন আগে তাজমহলকে তেজো মহালয়া আখ্যা দিয়ে তা দখলের ডাক দেয়া হয়েছিল। সম্প্রতিক বারাণসীর জ্ঞানবাপি মসজিদটিতে জরিপকাজ চালানোর বিষয়টি দেশজুড়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। এমন সময় শ্রীরঙ্গপট্টনার টিপু সুলতান মসজিদ নিয়ে বিতর্ক উঠেছে কর্ণাটক রাজ্যে। ২৩৬ বছরের পুরোনো মসজিদটি জামা মসজিদ বা মসজিদ-ই-আলা নামেও পরিচিত।

হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠী নরেন্দ্র মোদি ভিচার মঞ্চের সদস্যরা মান্ডিয়ার জেলা কালেক্টরের কাছে এ বিষয়ক একটি স্মারকলিপি জমা দিয়ে দাবি করেছে, মসজিদটি একটি হনুমান মন্দিরের উপর নির্মিত হয়েছে এবং এটি হিন্দুদের কাছে হস্তান্তর করা উচিত।

karnatakaকর্নাটক

কালী মঠের ঋষি কুমার স্বামী নামে আরেক ব্যক্তি দাবি করেছেন, ১৭৮৪ সালে হনুমান মন্দির ভেঙে ফেলার পরে টিপু সুলতান মসজিদটি তৈরি করেছিলেন। তিনি বলেন, টিপু সুলতানের শাসনামলে হনুমান মন্দিরকে মসজিদে রূপান্তর করা হয়। মসজিদ যে একসময় হিন্দু মন্দির ছিল তা প্রমাণ করার জন্য যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। মসজিদের অভ্যন্তরে পূর্বের হোয়সালা রাজ্যের প্রতীক রয়েছে বলেও দাবি করেন স্বামী। মসজিদ ভেঙে ফেলার হুমকি দেওয়ার অভিযোগে গত জানুয়ারিতে ঋষি কুমার স্বামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। বর্তমানে তিনি জামিনে আছেন। এদিকে উগ্র হিন্দুবাদী নেতাদের বিরুদ্ধে সুরক্ষার জন্য জেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ।

শ্রীরঙ্গপত্তনাকে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা কর্ণাটকের অযোধ্যা বলে মনে করেন। এলাকাটি বর্তমানে জনতা দল (ধর্মনিরপেক্ষ) দলের অধীনে রয়েছে। মান্ডা জেলার শ্রীরঙ্গপাটনা ভোক্কালিগা সম্প্রদায়ের একটি শক্তিশালী ঘাঁটি।

আগামী বছরের নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন বিজেপি এ অঞ্চলে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কারণ এলাকাটি পুরো রাজ্যের রাজনীতিকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করার সক্ষমতা রাখে।