advertisement
আপনি পড়ছেন

ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক জীবাণু কর্মসূচির অকাট্য প্রমাণ পাবার দাবি করেছে রাশিয়া। ইউক্রেনের ল্যাবরেটরিতে প্লেগ, অ্যানথ্রাক্স, কলেরা ও অন্যান্য জীবাণু জোরদারের কাজ চলছিল এবং ইউক্রেনীয় সৈন্যদের উপরও এসব জীবাণু অস্ত্র প্রয়োগ হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছে দেশটি।

maria zakharova best twsdমারিয়া জাখারোভা বলেছেন, ইউক্রেনের জীবাণু ল্যাবরেটরিগুলোতে মার্কিন নাগরিকরা কাজ করতেন

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা আজ দুপুরে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বলেছেন, ইউক্রেনের ১৪টি এলাকার ৩০টি ল্যাবরেটরি সিনথেটিক বায়োলজি পদ্ধতিতে প্লেগ, অ্যানথ্রাক্স, কলেরা, যক্ষা ও অন্যান্য প্রাণসংহারি রোগের জীবাণু উপাদান সংহতকরণের কাজ করছিল। এসব ল্যাবরেটরিতে মার্কিন নাগরিকরা কাজ করতেন এবং তারা কূটনৈতিক দায়মুক্তির সুবিধা ভোগ করতেন।

তিনি বলেন, খেরসন অঞ্চলে কিছু ড্রোন পাওয়া গেছে যেগুলোতে জীবাণু মিশ্রণ ছিটানোর যন্ত্র ও কন্টেইনার সংযুক্ত ছিল। একইভাবে খারকভ অঞ্চলে জীবাণু অস্ত্র নিয়ে দায়িত্বহীন পরীক্ষার নথিপত্র পাওয়া গেছে। পরীক্ষামূলকভাবে জীবাণুৃ সংক্রমণ ঘটানোর জেরে কেবল খারকভ ল্যাবরেটিতেই ২০ জন ইউক্রেনীয় সৈন্যের মৃত্যু হয়েছিল এবং আরও ২০০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল। খারকভের একটি মানসিক ব্যাধি হাসপাতালে পরীক্ষামূলকভাবে রোগীদের উপর মারাত্মক জীবাণু পণ্য প্রয়োগ করা হয়েছিল।

রাশিয়ার অন্যতম জ্যেষ্ঠ এ কূটনীতিক বলেন, লুহানস্ক অঞ্চলের স্লাভিয়ানোসেরভস্কি জেলার অধিবাসীদের মধ্যে যক্ষা সংক্রমণ ঘটানোর জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে যক্ষার কজেটিভ এজেন্ট ছড়ানো হয়েছিল। স্থানীয়দের বিভ্রান্ত করতে ২০২০ সালে জাল ব্যাংকনোটে ওই জীবাণু মিশিয়ে বাজারে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল।

ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্র কর্মসূচি সম্পর্কে ইউরোপীয় কর্তৃপক্ষ অবহিত রয়েছে এমন অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে যেসব ইউক্রেনীয় নাগরিক ইউরোপে পৌঁছাচ্ছে, সবার আগে তাদের যক্ষা পরীক্ষা করা হচ্ছে। কারণ তারা জানে ইউক্রেনে ন্যাটোর স্থাপনাগুলো কি কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছিল।

ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর আগে থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে রাশিয়ার সমীন্তবর্তী অঞ্চলে জীবাণু অস্ত্র কর্মসূচি পরিচালনার অভিযোগ করে আসছেন মস্কোর কর্মকর্তারা। এর আগে ৯ মার্চ রাশিয়ার এ সংক্রান্ত অভিযোগের জবাবে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, রাশিয়ার অভিযোগ ডাহা মিথ্যা। ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো রাসায়নিক ও জীবাণু ল্যবরেটরি নেই।

মারিয়া জাখারোভার সবশেষ অভিযোগ সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।