advertisement
আপনি পড়ছেন

দক্ষিণ আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর পূর্ব লন্ডনের ২১ তরুণের রহস্যজনক মৃত্যু ঘটেছে। শহরের একটি নাইটক্লাবে তাদেরকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। দেশটির বাণিজ্যিক রাজধানী জোহানেসবার্গ থেকে প্রায় এক হাজার কিলোমিটার দক্ষিণে ভারত মহাসাগরের উপকূলে অবস্থিত শহরের একটি নাইটক্লাবে এ ঘটনা ঘটে। খবর আলজাজিরা।

forensic personnel load bodies of the victimsপোস্টমর্টেমের জন্য মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

নিরাপত্তা বিভাগের কর্মকর্তা উনাথি বিনকোস তাদের মৃত্যুর কারণ হিসাবে পদদলিত হওয়ার সম্ভাবনায় অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, তারা পদদলিত হয়ে মারা গেছে বলে বিশ্বাস করা কঠিন। কারণ তাদের মৃতদেহে এ ধরনের কোনো আঘাত দেখা যায়নি।

তবে পুরো জায়গা জুড়ে অ্যালকোহলের খালি বোতল, পরচুলা ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতে দেখা গেছে। পোস্টমর্টেমের মাধ্যমেই তাদের মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ডিসপ্যাচলাইভ এক রিপোর্টে জানিয়েছে- টেবিল, চেয়ার ও মেঝেজুড়ে মৃতদেহগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। তবে সেগুলোতে আঘাতের কোনো সুস্পষ্ট চিহ্ন নেই।

relatives cordoned off at enyobeni tavernনিহতদের স্বজনরা ভিড় জমিয়েছেন ক্লাবের বাইরে

খবর পেয়ে ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভেকি সেল মর্গ পরিদর্শন করে বেরিয়ে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এটি একটি ভয়ানক দৃশ্য। তারা বেশ অল্প বয়সী। তাদের মধ্যে কারো কারো বয়স ১৩, ১৪ বছর। এ অবস্থা দেখলে আপনারাও নিজেদের ধরে রাখতে পারবেন না।

প্রাদেশিক প্রধানমন্ত্রী অস্কার মাবুয়ানে এ ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, একেবারেই অবিশ্বাস্য; এভাবে এতগুলো তরুণের জীবন হারানো! একই সাথে তিনি মাত্রাতিরিক্তি মদপানেরও নিন্দা করেন। এ ঘটনায় জি৭ সম্মেলন উপলক্ষে জার্মানিতে অবস্থান করা দেশটির প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা শোক জানিয়েছেন।

ইস্টার্ন কেপের প্রাদেশিক সরকার জানিয়েছে, ৮ মেয়ে এবং ১৩ জন ছেলে মারা গেছে। নাইটক্লাবের ভেতরে ১৭ জনের মৃতদেহ পাওয়া গেছে। বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছে। অভিভাবক ও কর্মকর্তারা বলেন, নিহতরা সম্ভবত স্কুলের পরীক্ষা শেষ হওয়ায় ‘পেন ডাউন’ পার্টি উদযাপন করছিল।

টাউনশিপ ট্যাভার্নে ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য মদ্যপানের অনুমতি দেওয়া হয়। আইনটি অবশ্য সবসময় প্রয়োগ করা হয় না। তবে এ ঘটনায় মদের লাইসেন্সিং প্রবিধান সংশোধন করা হবে কি-না, তা বিবেচনা করছে কর্তৃপক্ষ। আফ্রিকার দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকায় সবচেয়ে বেশি অ্যালকোহল পান করা হয়।

এএফপির একজন সংবাদদাতা জানান, যখন তদন্ত কর্মকর্তারা মৃতদেহগুলো মর্গে নিয়ে যাচ্ছিলেন, তখন পূর্ব লন্ডনের ওই নাইটক্লাবের বাইরে বাবা-মাসহ প্রচুর লোকজন ভিড় করেন।