advertisement
আপনি পড়ছেন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, নরডিক দুটি দেশ ন্যাটোতে যোগ দিতে চাইছে, এতে রাশিয়ার পক্ষ থেকে কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু ন্যাটোর সদস্য হওয়ার পর যদি এ দুই রাষ্ট্রে অস্ত্র, সেনা ও অবকাঠামো মোতায়েন করা হয়, তাহলে কড়া প্রতিক্রিয়া জানানো হবে। খবর আল জাজিরা।

putin 20রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন

স্পেনের মাদ্রিদে দুই দিনব্যাপী ন্যাটো সম্মেলন শুরু হয়েছে গতকাল বুধবার। তার আগেই যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটটির সামনে থাকা বড় একটি সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে। ন্যাটোর সদস্য হওয়ার পথে ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের সামনে আঙ্কারার ভেটোর যে সমস্যা ছিল, তার সমাধান হয়ে গেছে। এ বিষয়ে একটি চুক্তিতে সই করেছে ফিনল্যান্ড, সুইডেন ও তুরস্ক।

এর ফলে রাশিয়ার প্রতিবেশী দুই রাষ্ট্র ন্যাটোর সদস্য হওয়া পথে এগিয়ে গেল অনেকখানি। সদস্য হওয়ার পর ন্যাটো খুব সহজেই এ দুই দেশে তাদের অস্ত্র ও সেনা মোতায়েন করতে পারবে, যা রাশিয়াকে বাড়তি চাপের মুখে ফেলবে নিশ্চিতভাবে।

nato finland sweden ন্যাটোতে যোগ দিতে যাচ্ছে ফিনল্যান্ড ও সুইডেন

এর আগেই পুতিন ন্যাটোর সাম্রাজ্যিক উচ্চাকাঙ্ক্ষার নিন্দা করেছেন। তিনি বলেন, দুটি নরডিক দেশ ন্যাটোতে যোগদানের পরে যদি সেখানে কোনো ধরনের অস্ত্র ও অবকাঠামো মোতায়েন করা হয়, তাহলে তিনি এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাবেন।

হেলসিঙ্কি ও স্টকহোমের ন্যাটোতে যোগদানকে কয়েক দশকের মধ্যে ইউরোপীয় নিরাপত্তায় সবচেয়ে বড় পরিবর্তনের অন্যতম ঘটনা বলে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

তুর্কমেনিস্তানে আঞ্চলিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে পুতিন বলেন, সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের সাথে আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তারা ন্যাটোতে যোগ দিতে চাইতেই পারে।

কিন্তু তাদের অবশ্যই বুঝতে হবে, আগে এখানে কোনো হুমকি ছিল না। এখন যদি সেখানে সামরিক বাহিনী ও অবকাঠামো মোতায়েন করা হয়, তাহলে আমাদেরকে এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানাতে হবে। যে অঞ্চল থেকে আমাদের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করা হয়েছে তার জন্যও আমাদের একই ধরনের হুমকি তৈরি করতে হবে।

ন্যাটো সদস্যপদ নিয়ে হেলসিঙ্কি ও স্টকহোমের সাথে মস্কোর সম্পর্ক অনিবার্যভাবে খারাপ হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে সবকিছু ঠিকঠাক ছিল, কিন্তু এখন কিছু উত্তেজনা থাকতে পারে, অবশ্যই থাকবে। আর আমাদের জন্য হুমকি থাকলে, আমাদের পক্ষ থেকেও থাকবে।