advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

সরকারি সম্পত্তি যে বা যারা গ্রাস করেছেন, সরকারকে ফিরিয়ে দিন, নইলে কঠোর পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি করে দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। রবিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে শ্রেষ্ঠ দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি, বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী, দুদক মিডিয়া আ্যওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠান ও সততা সংঘের সমাবেশে এ হুঁশিয়ারি করেন তিনি।

dodak iqbal mahmud

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, আজকে কেন যেন মনে হয় অনিয়মকে সবাই নিয়মে পরিণত করছে। বনানীর এই বিয়োগাত্মক ঘটনা এই সব অনিয়মের পরিণতি। তিনি আরও বলেন, সময় মতো কাজ করবেন না এটাও দুর্নীতি। ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে অনেক আগেই কাজ শুরু হয়েছে, এবার এসব অনিয়ম বা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কাজ শুরু হবে। ১৮ তলা ভবনের অনুমোদন পেলো, বানালেন ২২ তলা। এই অনিয়মের সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের ক্ষমা হবে না।

‘এভাবে জনগণের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা আর সহ্য করা ঠিক হবে না। এদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনতে হবে,’ যোগ করেন তিনি।ঘুষ-দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে দুদক কাজ করছে, তবে এ কথাও ঠিক কমিশনের একার পক্ষে কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় ঘুষ-দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়।’ কেন সম্ভব নয় প্রশ্ন করে দুদক চেয়ারম্যান নিজেই বলেন, একটি প্রতিষ্ঠান দিয়ে সব কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। তারপরও আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা কমিশনের ত্রুটি –বিচ্যূতি নিয়ে লিখবেন, আমাদের গঠনমূলক সমালোচনাকে আমরা সর্বদাই স্বাগত জানাই। এসময় দুদক চেয়ারম্যান সম্মিলিতভাবে দুর্নীতি প্রতিরোধ এবং নৈতিক মূল্যবোধ বিকাশে সামাজিক আন্দোলনে অংশগ্রহণের আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও গণ স্বাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হচ্ছে বৈষম্যহীন, দুর্নীতিমুক্ত ও কলহমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণ। দুদকের প্রশংসা করে তিনি আরও বলেন, দুদক নতুন প্রজন্মকে নিয়ে কাজ শুরু করেছে। অনেকেই বলেন ব্যাংক লুটপাট নিয়ে দুদক কাজ করুক। আমি বলবো এ কাজ দুদক করবে। আগামী দিনে যারা ব্যাংক চালাবে তাদের নিয়ে যে কাজ করছে এটা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- দুদক কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান ও এএফএম আমিনুল ইসলাম, দুদক সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখ্ত, দুদক মিডিয়া জুড়ি বোর্ডের সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, বিতার্কিক আলিফ আল জামাল, সততা সংঘের সদস্য সঞ্চিতা রহমান মিম প্রমুখ।

এবারের দুদক মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী সাংবাদিকরা হলেন- ইলেকট্রনিক ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকারী মাছরাঙা টিভির বিশেষ প্রতিনিধি বদরুদ্দোজা বাবু, ২য় স্থান অধিকারী ৭১ টিভির সিনিয়র রিপোর্টার পারভেজ নাদির রেজা এবং প্রিন্ট ক্যাটাগরিতে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকার সিনিয়র রিপোর্টার ফখরুল ইসলাম হারুণ এবং ২য় স্থান অধিকার করেছেন দৈনিক সমকাল পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি হকিকত জাহান হকি।

প্রথম পুরস্কার হিসেবে রয়েছে নগদ ৫০ হাজার টাকা, ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট এবং ২য় পুরস্কার হিসেবে রয়েছে নগদ ৪০ হাজার টাকা ও ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট।

sheikh mujib 2020