advertisement
আপনি দেখছেন

ফরিদপুরের সদরপুরের ১২ মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল করে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) সিদ্ধান্ত ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছে হাইকোর্ট। একইসঙ্গে, এসব মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।

bangladesh high court

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, জামুকা, জামুকার চেয়ারম্যান, জামুকার মহাপরিচালক ও ফরিদপুরের জেলা প্রশাসককে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

পৃথক দুই রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী অমিত দাশ গুপ্ত। তার সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র দাস ও মো. শাহিনুর রহমান।

এর আগে গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর ওই ১২ জনের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল করেন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা)।

বাতিলের কারণ হিসেবে পৃথক পৃথক ভাবে বলা হয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় ট্রেনিং নেননি এবং মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেননি।

জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের এই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে গত ৪ এপ্রিল হাইকোর্টে পৃথক দুটি রিট করেন চর নাছিরপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. মজিবর রহমান মাতুব্বর ও হারুন অর রশিদসহ ১২ জন। ইউএনবি।