advertisement
আপনি দেখছেন

ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরসহ ছাত্রদের ওপর যারা হামলা করেছে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। রোববার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ও ছাত্রলীগের হামলায় আহত ভিপি নুরকে দেখতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

nanok vp noor

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, এ হামলা এত পৈশাচিক ও বর্বর হয়েছে যে, ঘটনা শুনেই প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন তাদেরকে দেখতে আসার জন্য। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করলে সরকার তা সহ্য করবে না। আজকে নুরের ওপর যে হামলা হয়েছে, তা কোনো রাজনৈতিক প্রতিহিংসার ঘটনা নয়।

তিনি বলেন, কিছু দুষ্কৃতকারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। যে মঞ্চই এ হামলা করুক না কোন, তাদের কাউকেই সরকার রেহাই দেবে না। সবাইকে দ্রুতই আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

এ সময় জাহাঙ্গীর কবির নানকের সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্রাচার্য। প্রথমে হাসপাতালে ঢুকতে তাদেরকে বাধা দেয় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। পরে সেখানে প্রবেশ করেন তারা।

এর আগে, রোববার বেলা পৌনে ১টার দিকে ডাকসুতে ঢুকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে ভিপি নুরুল হক নুরের ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের ২৪ জন নেতাকর্মী মারাত্মকভাবে আহত হন।

হামলাকারীরা ডাকসুর ভেতরে ভাঙচুর চালায় এবং বাইরে থেকে ইট-পাটকেল ছোঁড়ে। বাধা দিতে গেলে ডাকসুর সদস্য ও ছাত্রলীগ নেতা রাকিবুল ইসলাম ঐতিহ্যকেও শিবির আখ্যা দিয়ে লাঞ্ছিত করা হয়।

জানা যায়, হামলায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুলের নেতৃত্বে সংগঠনটির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেন ঢাবির সূর্যসেন হল সংসদের ভিপি মারিয়াম জামান সোহান ও জিএস সিয়াম। তারা লাঠিসোটা নিয়ে ভিপি নুর ও তার লোকজনদের মারধর করে।