advertisement
আপনি দেখছেন

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে পবিত্র ঈদুল ফিতরের প্রথম জামাত শেষে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ মোনাজাত করা হয়েছে। এতে দেশ ও গোটা বিশ্বকে মরণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’লার কাছে দোয়া করা হয়।

special doa in baitul mokarram home

একই সঙ্গে ফিলিস্তিনসহ বিশ্বের যেখানে যে প্রান্তে মুসলিমরা নির্যাযিত, নিপীড়িত ও নানা সংকটে আছেন, তাদের মুক্তি জন্য আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করা হয়। এ সময় হাজার হাজার মুসল্লির ‘আমীন আমীন’ ধ্বনিতে মুখরিত হয় গোটা বায়তুল মোকাররম এলাকা।

এ ছাড়া মোনাজাতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবার এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্যও বিশেষভাবে দোয়া করা হয়।

এর আগে পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ শুক্রবার সকাল ৭টায় বায়তুল মোকাররম মসজিদে ঈদুল ফিতরের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে হাজার হাজার মুসল্লি অংশ নেন। এর পর ৭টা ২১ মিনিটে শুরু হয় বিশেষ মোনাজাত। প্রায় ১০ মিনিটব্যাপী মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।

special doa in baitul mokarram

প্রথম জামাতে ইমামতি ও দোয়া পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মুফতি মাওলানা মিজানুর রহমান। এ সময় মুকাব্বির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মুয়াজ্জিন হাফেজ কারী কাজী মাসুদুর রহমান।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজে অংশ নিতে ঢাকার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মুসল্লিরা বায়তুল মোকাররম মসজিদে আসেন। প্রথম জামাতে মসজিদের ভিতরে নামাজের জায়গা না পেয়ে অনেকেই বাইরে নামাজ আদায় করেন।

এদিকে, করোনার মহামারি রোধের অংশ হিসেবে মসজিদের প্রবেশ পথে জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়। মসজিদ কর্তৃপক্ষ যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে বিনামূল্যে মাস্ক সরবরাহ করেছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মুসল্লিরা জামাতে অংশ নেন। তবে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার ক্ষেত্রে তেমনটা কড়াকড়ি পরিলক্ষিত হয়নি।

special doa in baitul mokarram inner

ঈদুল ফিতরের নামাজ উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম এলাকায় বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী। মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ ও র‌্যাবের অতিরিক্ত সদস্য।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানোর অংশ হিসেবে এবারো ঈদ জামাত কেন্দ্রীক বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে সরকারের ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে মসজিদে পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ঈদের নামাজ শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করতে হবে। সেইসঙ্গে যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলা হয়েছে নির্দেশনায়।