advertisement
আপনি দেখছেন

ঋতু বদলের সময়ে ভাইরাসজনিত অসুখ-বিসুখ বেড়ে যায়। ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ে জ্বর-সর্দি-কাশির মত দুশ্চিন্তা জাগোনো রোগগুলো। যদিও এসব অসুখে বড় কোনো ঝুঁকি নেই, কিন্তু অবহেলা করলে ফলাফল ভিন্নও হতে পারে। ছোট সমস্যা গড়াবে বড় পরিণতির দিকে। একটু সতর্ক হলেই এসব রোগবালাই থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব। আসুন জেনে নিই, ভাইরাস অসুখ থেকে বেঁচে থাকতে কোন নিয়মগুলো মেনে চলা জরুরি।

flue

মেন চলুন খাওয়া ও ঘুমের রুটিন

দেহঘড়িতে রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ ঠেকাতে কোনোভাবেই খাওয়া ও ঘুমের রুটিন হেরফের করা চলবে না। চিকিৎসকরা বলেন, মানবদেহে বেশিরভাগ রোগ বাসা বাঁধে খাওয়া এবং ঘুম এলোমেলো হয়ে গেলে। তাই ঠিক সময়ে সকাল-দুপুর-রাতের খাবার গ্রহণের পাশাপাশি নিয়ম করে ঘুমুতে যাওয়া এবং ঘুম থেকে ওঠার রুটিন কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

এ সময়ে হাত-মুখ বেশি বেশি ধুয়ে নিন

বাইরে থেকে ফিরেই হাত-মুখ ধুয়ে নিন। এক গবেষণায় দেখা গেছে, হাতের মাধ্যমে মানব দেহে রোগ ছড়ানোর ঝুঁকি অনেক বেশি থাকে। হাত দিয়ে কত কিছু স্পর্শ করি, শরীরের নানান জায়গায় হাত বুলাই, যখন হাত না ধুয়ে খাবার গ্রহণ করি কিংবা মুখে হাত দিই, তখন ভয়াবহ রোগ দেহে ঢুকে পড়তে পারে। তাই সতর্ক থাকুন।

পরিষ্কার রাখুন ফোন-ল্যাপটপ

মোবাইল-ল্যাপটপ পরিষ্কারের ব্যাপারে আমরা যেন একটু বেশিই উদাসীন। দিনের বেশিরভাগ সময় মেবাইল-ল্যাপটপে যারা কাজ করেন, তাদের এই বিষয়য়ে উদাসীনতা ভয়াবহ রোগ ডেকে আনতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, মোবাইল-ল্যাপটপ কম্পিউটারে মানব দেহের জন্য ক্ষতিকারক জীবাণু প্রবচুর পরিমাণে ছড়িয়ে থাকে। নিয়ম করে ল্যাপটপ- মোবাইল পরিষ্কার এবং খাওয়ার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে নিলে অনেকাংশে জীবাণুর আক্রমণ থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব।

মাস্ক ব্যবহার করতেই হবে

নিজের এবং অন্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সঠিক উপায়ে মাস্ক ব্যবহারের বিকল্প নেই। নিয়মিত মাস্ক ব্যবহার করলে শতকরা নব্বই শতাংশ ভাইরাস রোগ থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব। এ ছাড়া ফুসফুসের জটিল রোগের ঝুঁকিও কমে যায়। তাই মাস্ক ব্যবহার করুন এবং সুরক্ষিত থাকুন।

অসুখ হলে কী করবেন?

যদি অসুখে পেয়েই বসে তাহলে সাবধান থাকতে হবে। ছোট অসুখ যেন যেন বড় পরিণতি ডেকে না আনে। হাঁচি-কাশির সময় মুখে হাত বা কাপড় দিন। এতে করে অন্যরা সুরক্ষিত থাকবে। কাশিকে অবহেলা করবেন না। শুরুতেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।