advertisement
আপনি দেখছেন

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণে দিশেহারা গোটা বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। বিজ্ঞানীরা দিন-রাত এক করে এর প্রতিষেধক আবিষ্কারের চেষ্টা করলেও এখনো শতভাগ কার্যকর প্রমাণিত হয়নি কোনটিই। তাই প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচার এখন একমাত্র উপায় নিজে সচেতন থাকা এবং সব সময় জীবাণুমুক্ত থাকা।

hand sanitizerকরোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে ব্যবহার করুন হ্যান্ড স্যানিটাইজার- প্রতীকী ছবি

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে বাতাস বা স্পর্শের মাধ্যমে ছড়ায়। এটি নাক, মুখ, চোখের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে এবং ফুসফুস, কিডনিসহ বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ক্ষতি করে। তাই এ সময়টাতে প্রত্যেকের ভালো মানের মাস্ক পরিধান করা অত্যন্ত জরুরি। যাতে এটি শরীরে প্রবেশ করতে না পারে।

এছাড়া ভাইরাসটি যেকোনো বস্তুর ওপর দীর্ঘক্ষণ জীবিত থাকতে পারে। যা হাতের মাধ্যমে যে কারো শরীরে প্রবেশ করতে পারে। তাই বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনাভাইরাসের এই সংকটকালে কিছুক্ষণ পর পর সাবান-পানি দিয়ে ভালো করে হাত ধুতে হবে। অথবা কিছুক্ষণ পর পর হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে। যাতে হাতের মাধ্যমে ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করতে না পারে।

তবে শুধু সাবান-পানি দিয়ে কোনমতে হাত ধুলেই তা জীবাণুমুক্ত হয় না। হাত কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে ভালো করে ঘষে ধুতে হবে। যাতে হাতের প্রতিটি স্থানে সাবান ভালো করে লাগে। আবার সব জায়গায় সাবান পানি পাওয়া যায় না। তখন হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। তবে সেটিও সঠিকভাবে ব্যবহার না করলে করোনাভাইরাস ধ্বংস নাও হতে পারে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক কীভাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন।

hand sanitizer 2করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে ব্যবহার করুন হ্যান্ড স্যানিটাইজার- প্রতীকী ছবি

সঠিকভাবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের পদ্ধতি

হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের আগে অবশ্যই হাতে কোনো আংটি বা অলংকার থাকলে তা খুলে নিতে হবে। কারণ এসব বস্তুর প্রতিটি স্থানে স্যানিটাইজার নাও পৌঁছাতে পারে। তাই স্যানিটাইজার ব্যবহারের আগে এগুলো অবশ্যই খুলে নিতে হবে।

এরপর হাতে কোনো দৃশ্যমান ময়লা থাকলে সেটি ভালো করে পরিষ্কার করে নিতে হবে। তারপর যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের (সিডিসি) দেওয়া তিনটি নির্দেশনা অনুসরণ করে হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

নির্দেশনাগুলো হলো- প্রথমে এক হাতের তালুতে প্রয়োজন মতো হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিতে হবে। তারপর তা দুই হাতের তালুতে, হাতের উভয় পৃষ্ঠে এবং আঙ্গুলে ঘষতে হবে। অন্তত ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার না শুকানো পর্যন্ত এভাবে ঘষে হাত পরিষ্কার করা উচিত। এতে হাতে কোনো জীবাণু থাকলে তা ধ্বংস হয়ে যাবে।

hand sanitizer 3করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে ব্যবহার করুন হ্যান্ড স্যানিটাইজার- প্রতীকী ছবি

তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার যেন হাতের প্রতিটি অংশে লাগে। কোনো জায়গায়ই যেন বাদ না যায়। দুই হাতের কবজির দুই ইঞ্চি ওপর পর্যন্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ঘষা উচিত।

হ্যান্ড স্যানিটাইজার কখন ব্যবহার করেবেন আর কখন করবেন না

কেউ যখন বাসার বাইরে রাস্তায় থাকেন বা যেখানে সাবান-পানির ব্যবস্থা নেই সেখানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত। যেমন- গণপরিবহন, কর্মস্থল। ভাইরাস থাকতে পারে এমন কিছু স্পর্শ করার পর অবশ্যই হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত। তবে যেখানে সাবান-পানির ব্যবস্থা আছে সেখানে এই সুরক্ষা সামগ্রীটি ব্যবহার না করাই ভালো। কারণ, সাবান-পানি ভাইরাস বা জীবাণু ধ্বংসে সবচেয়ে বেশি কার্যকর। তাছাড়া হ্যান্ড স্যানিটাইজার দৃশ্যমান ময়লা, তৈল-চর্বি, পেস্টিসাইডের মতো ক্ষতিকারক কেমিক্যাল দূর করতে পারে না। পাশাপাশি এতে থাকা অ্যালকোহল ক্ষতস্থানে জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করতে পারে। তাই সাবান-পানি থাকলে সেটিকেই অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত।

corona virus 1করোনাভাইরাস- প্রতীকী ছবি

তবে যেখানে সাবান-পানির ব্যবস্থা নেই সেখানে অবশ্যই হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত। এতে ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যায়। খাবারের গ্রহণের আগে এই সুরক্ষা সামগ্রীটি ব্যবহার করলে এটি পুরোপুরি শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। এরপর খাবার গ্রহণ করুন।

যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন

সিডিসির পরামর্শ অনুযায়ী, যে স্যানিটাইজারে ৬০ শতাংশ অ্যালকোহল আছে সেগুলো ব্যবহার করা উচিত। বাজারে পাওয়া হ্যান্ড স্যানিটাইজারগুলোতে ৬০ থেকে ৯৫ শতাংশ অ্যালকোহল থাকে। তবে এটি মনে করার কোনো কারণ নেই যে, বেশি অ্যালকোহল থাকলেই বেশি কার্যকর। হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সর্বোচ্চ কার্যকারিতার জন্য এতে কিছু পরিমাণ পানিও থাকা প্রয়োজন। তবে অ্যালকোহলের মাত্র যদি ৬০ শতাংশের কম হয়, তাহলে তা জীবাণু ধ্বংস করতে পারে না।

sheikh mujib 2020