advertisement
আপনি দেখছেন

ব্যথানাশক ট্যাবলেট তৈরির মূল উপাদান 'টাপেন্টাডলকে' মাদকদ্রব্য হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। এর ফলে এখন থেকে ওষুধ কোম্পানিগুলো এ উপাদানটি ব্যবহার করে আর ট্যাবলেট উৎপাদন করতে পারবে না।

tepentadol tablet1

মাদকসেবীরা এই ওষুধকে মাদকের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাই গত ৮ জুলাই এ নিয়ে একটি গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার। সেখানে উপাদানটিকে 'খ' শ্রেণির মাদকদ্রব্য হিসেবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের তফসিলভুক্ত করা হয়েছে।

এর আগে সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি আদেশ জারি করা হয়।

tepentadol tablet

সেখানে বলা হয়েছে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রস্তাবমতে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের সুপারিশের ভিত্তিতে টাপেন্টাডলকে মাদকদ্রব্য হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হলো। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৬৫ ধারা মোতাবেক এটি ‘খ’ শ্রেণির মাদকদ্রব্য।

এদিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৬৫ ধারায় বলা আছে, সরকার গেজেট আকারে প্রজ্ঞাপন জারি করে কিংবা তফসিল সংশোধন করে কোনো মাদকদ্রব্যের নাম অন্তর্ভুক্ত বা বাদ দিতে পারবে। সাধারণত ধরন ও ব্যাপকতার ওপর ভিত্তি করে মাদকদ্রব্যকে ক, খ এবং গ শ্রেণিতে ভাগ করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের তফসিলভুক্ত করা হয়।

sheikh mujib 2020