advertisement
আপনি দেখছেন

নিজেদের তৈরি করোনাভাইরাস প্রতিরোধী ভ্যাকসিন প্রথমবারের মতো জনসম্মুখে আনলো চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাক বায়োটেক এবং সিনোফার্ম। বেইজিংয়ে চলমান সপ্তাহব্যাপী বাণিজ্য মেলায় ভ্যাকসিনগুলো প্রদর্শনীর জন্য রাখা হয়েছে।

china cv vaccine show1ভ্যাকসিন প্রার্থীরা সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিন ঘুরে ঘুরে দেখছেন এবং ছবি তুলে নিচ্ছেন

সেখানে আজ সোমবার ভ্যাকসিন প্রার্থীরা এগুলো ঘুরে ঘুরে দেখছেন এবং ছবি তুলে নিচ্ছেন। বুথগুলোর আশপাশে অসংখ্য মানুষের ভিড় লক্ষ করা গেছে।

এদিকে, সংশ্লিষ্ট গবেষকরা আশা করছেন, গুরুত্বপূর্ণ তিনটি ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পর এ বছরের শেষ নাগাদ ভ্যাকসিনগুলো ব্যবহারের জন্য অনুমোদন পাবে।

এ বিষয়ে সিনোভ্যাক বায়োটেকের একজন প্রতিনিধি বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, তাদের প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে একটি ভ্যাকসিন কারখানার নির্মাণ কাজ শেষ করেছে। ওই কারখানায় বছরে ৩০০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন উৎপাদন করা সম্ভব হবে।

china cv vaccine showভ্যাকসিন প্রার্থীরা সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিন ঘুরে ঘুরে দেখছেন এবং ছবি তুলে নিচ্ছেন

সম্প্রতি সিনোফার্মের চেয়ারম্যানের বরাত দিয়ে চীনা সাময়িকী গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, ভ্যাকসিনগুলোর দাম খুব বেশি হবে না। প্রতিজনের জন্য দুটি করে ডোজ লাগবে। এক্ষেত্রে দাম পড়বে ১০০ ইউয়ান বা ১৪৬ ডলারের চেয়ে কম।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, বর্তমানে বিশ্বের সাতটি কোম্পানির ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তৃতীয় বা চূড়ান্ত ধাপে রয়েছে। এর মধ্যে শুধু চীনেরই আছে তিনটি ভ্যাকসিন। বাকিগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের একটি ও অন্যটি রাশিয়ার তৈরি। অবশ্য রাশিয়ার ভ্যাকসিন নিয়ে তাদের কাছে পর্যাপ্ত তথ্য নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে সংস্থাটি।

sheikh mujib 2020