advertisement
আপনি দেখছেন

যে পরিমাণ সময় নিয়ে কোনো রোগের টিকা আবিষ্কৃত হয়, কোভিড-১৯ মহামারির ক্ষেত্রে তা হয়নি। রোগের ব্যাপকতার কারণে একটু তড়িঘড়ি করেই টিকা বাজারে এসেছে। এর মধ্যে আবার টিকা নিয়ে রাজনীতির বিষয়টিও আলোচিত। কে কার আগে টিকা আনবে, এবার সে প্রতিযোগিতাটি মানুষের চোখে ধরা পড়েছে। এসব কারণে অন্য টিকাগুলোর তুলনায় কোভিডের টিকা নিয়ে মানুষের মধ্যে সংশয়ও বেশি করে দানা বেঁধেছে।

effects of cv vacc homeকরোনার টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী কী?

এ সন্দেহের বশবর্তী হয়ে বিশ্বের বিপুল সংখ্যক লোক টিকা নেওয়া থেকে বিরত রয়েছে। বৈশ্বিকভাবে কিংবা সরকারি তরফে টিকা নেওয়ার জন্য সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

টিকা নিয়ে মারা যাচ্ছে, গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ছে, বন্ধ্যাত্বকরণ হচ্ছে- এসব এখন বাতাসে উড়ে বেড়াচ্ছে। বিজ্ঞানীরা কিন্তু এসব গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। তবে কোভিডের টিকা নেওয়ার পর কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে, সে ব্যাপারে সবাই একমত।

চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা বলেছেন, টিকার কারণে খুব বেশি অসুস্থ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা কম, তবে অনেকের মধ্যে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া: এখন পর্যন্ত বলা হচ্ছে, কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন একটা নিরাপদ ভ্যাকসিন।

তবে ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে কারো কারো ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

যেমন ভ্যাকসিন প্রয়োগের জায়গায় ফুলে যাওয়া, সামান্য জ্বর হওয়া, বমি বমি ভাব, মাথা ও শরীর ব্যথা।

ফাইজার, অক্সফোর্ড ও মডার্নার টিকার ক্ষেত্রে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলা হচ্ছে। প্রতি ১০ জনের মধ্যে একজনের মধ্যে এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে বলে বলা হচ্ছে। এগুলো হচ্ছে, টিকার স্থানে ব্যথা, ফোলা বা লাল হওয়া, মাংসপেশি বা অস্থিসন্ধিতে ব্যথা, জ্বর, শীতল অনুভূতি, মাথাব্যথা ও ক্লান্তি।

effects of cv vaccকরোনার টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী কী?

তবে এগুলোকে টিকা শরীরে সঙ্গে মানিয়ে যাওয়ার পদ্ধতি বলেই ধরা হয়।

এখন পর্যন্ত বিশ্বে যেসব স্থানে টিকা দেওয়া হয়েছে, তার মধ্যে কিছু কিছু ক্ষেত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

ভারতে টিকা কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর বিপুল লোকের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। টিকা দেওয়ার পর মৃত্যুর খবরও শোনা গেছে। তবে ভারতের কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেছে ওই মৃত্যুর সঙ্গে টিকার কোনো সম্পর্ক নেই।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সম্প্রতি বলেছেন, বিনামূল্যের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর টিকা গ্রহণকারী কারও মধ্যে যদি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, তাহলে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।