advertisement
আপনি পড়ছেন

প্রবল বৃষ্টিপাতের ফলে বন্যায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউল। গতকাল সোমবার রাতে টানা বর্ষণে সিউল শহরের অনেক সড়ক তলিয়ে যায়, প্লাবিত হয়ে পড়ে মেট্রো স্টেশন। হাঁটু পানির নিচে ডুবে যায় আশপাশের বিশাল এলাকা। আকস্মিক এ বন্যায় কমপক্ষে আটজনের প্রাণহানি ঘটেছে, আহত হয়েছে ১৪ জন। এছাড়া আরও ছয়জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গেছে। বিবিসি, সিএনএন।

flood in seoulবন্যায় সিউলে আটজনের প্রাণহানি

দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ইয়োনহাপে প্রকাশিত ছবিতে দেখা গেছে, রাজধানী সিউলের কেন্দ্রে মেট্রোরেল স্টেশনের সিঁড়ির ওপরে উঠে গেছে বন্যার পানি। সড়কে পার্ক করা গাড়িগুলো জানালা পর্যন্ত ডুবে গেছে। হাঁটু-পানি ডিঙিয়ে ছাতা মাথায় রাস্তা পার হচ্ছে নারী-পুরুষ। তখনও বৃষ্টি ঝরছে প্রবল বর্ষণে।

দেশটির সেন্ট্রাল ডিজাস্টার অ্যান্ড সেফটি কাউন্টারমেজারস হেডকোয়ার্টার জানায়, আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত সিউলে অন্তত পাঁচজন এবং পাশের গিয়াংগি প্রদেশে আরও তিনজন মারা গেছেন। এদের মধ্যে দুই নারী ও এক কিশোরী একটি বাড়ির বেসমেন্টে বাস করতেন। রাতের কোনো একসময় তারা ডুবে মারা যান। এছাড়া সিউলের মেট্রো স্টেশনে একজন, নিজ বাড়িতে বিদ্যুতায়িত হয়ে আরেকজন এবং বাড়ি ধসে একজনের মৃত্যুর কথা জানা গেছে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সিউলের বেশ কয়েকটি বাড়ি বন্যার তোড়ে ভেসে গেছে। এতে অন্তত ১৬৩ জন গৃহহীন হয়ে পড়েছে। তারা মঙ্গলবার সকালে সিউলের স্কুল ও সরকারি ভবনে আশ্রয় নিয়েছেন। কোরিয়ার আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, সিউলসহ দেশের কিছু অঞ্চলে ৮০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়েছে। ভারি বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে আরও কয়েক দিন।

সিউলের সংবাদ সংস্থা ইয়োনহাপ জানায়, রাজধানীর কিছু অংশ, পশ্চিমাঞ্চলীয় বন্দর শহর ইনচিওন ও গিয়াংগি প্রদেশে সোমবার রাতে ঘণ্টায় ১০ সেন্টিমিটারের বেশি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া সিউলের ডংজাক জেলায় ঘণ্টায় ১৪১.৫ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে।

১৯৪২ সালের পর থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় এটিই সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত বলে রেকর্ড করেছে কোরিয়ার মেটারোলজিক্যাল এজেন্সি (কেএমএ)।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর