advertisement
আপনি পড়ছেন

ব্রাজিলে গণতন্ত্র রক্ষায় সমাবেশ করেছে হাজারও জনতা। আগামী অক্টোবরে দেশটিতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারোর সমর্থকরা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানের ওপর হামলা করে যাচ্ছেন, এই অভিযোগে দেশটিতে গণতন্ত্রপন্থীদের বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবারও হাজার হাজার ব্রাজিলিয়ান রাস্তায় নেমে আসে। খবর টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

protest in brazil democracyব্রাজিলে হাজারো জনতার সমাবেশ

আগামী নির্বাচনের আগেই একটি জরিপে প্রকাশ পায়, বর্তমান প্রেসিডেন্ট অতি ডানপন্থী নেতা বলসোনারো পিছিয়ে রয়েছেন। এর পর থেকেই তিনি ও তার দলের লোকেরা বলে আসছেন, আগামী নির্বাচনে পরাজয় তারা মানবেন না। সরকারি দলের এই মনোভাব ব্রাজিলের জনগণের মনে ক্ষোভ ধরিয়েছে।

একই কারণে গতকাল বৃহস্পতিবারও বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। বলসোনারো ব্রাজিলের নির্বাচনী ব্যবস্থার ওপর বার বার সন্দেহ প্রকাশ করছেন। মূলত ক্ষমতা থেকে তিনি সরতে চাইছেন না। এজন্য তার নেতাকর্মীরা আগামী অক্টোবরের ভোটের ফলাফল মানবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে।

bolsonaro and lulaবলসোনারো ও লুলা

সাও পাওলো বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর কার্লোস গিলবার্তো জুনিয়র এক সমাবেশে বলেন, ব্রাজিলের স্বাধীনতার ২০০ বছর পরেও এখন আমাদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তা করতে হচ্ছে। সমাবেশে শত শত শিক্ষাবিদ, ব্যবসায়ী ও ট্রেড ইউনিয়ন নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে হাজার হাজার জনতা ব্যানার তুলে ধরে বলসোনারোর বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা স্লোগান দেয়, ‘ভোটের প্রতি সম্মান দিন, জনগণকে সম্মান করুন।’ কেউ কেউ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মতো প্রতীকী পোশাক পরেন।

এর আগে বলসোনারের বিরুদ্ধে একটি পিটিশনে ৯ লাখের বেশি মানুষ স্বাক্ষর করেন। গতকাল বৃহস্পতিবার একসাথে রিও ডি জেনিরো, ব্রাসিলিয়া এবং রেসিফেতেও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। ব্রাজিলের ভোটাররা ইভিএমে ভোট দিতে অভ্যস্ত। কিন্তু বলসোনারো দীর্ঘকাল ধরে ইভিএমের বিরোধিতা করে আসছেন।

আগামী অক্টোবরের নির্বাচনে বলসোনারোর জয়লাভ করার কোনো লক্ষণ নেই। ব্রাজিলে ২৮ জুলাই প্রকাশিত ডাটাফোলা ইনস্টিটিউটের সর্বশেষ মতামত জরিপ অনুসারে বলসোনারো সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা দা সিলভা থেকে ১৮ পয়েন্টে পিছিয়ে আছেন।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর