আপনি পড়ছেন

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ‘অবিশ্বাস্য’ জালিয়াতির অভিযোগে মামলা হয়েছে। মামলাটি করেছেন নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমস। তাদের বিরুদ্ধে ট্যাক্স সংগ্রহকারী, ঋণদাতা ও বিমা প্রতিষ্ঠানের কাছে সম্পদের ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য সরবরাহের অভিযোগ আনা হয়েছে। খবর টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

donald trump 2024ডোনাল্ড ট্রাম্প

অ্যাটর্নি জেনারেল লেটিশিয়া জেমস গতকাল বুধবার বলেন, ট্রাম্প পরিবারের পরিচালিত প্রতিষ্ঠান থেকে সম্পদের মিথ্যা তথ্য এবং ভুয়া বিবৃতি দেওয়া হয়েছে। ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের নামে লোন ও বিমা সুবিধা পেতে এবং ট্যাক্স কমাতে ডোনাল্ড ট্রাম্প নানা প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি নিজের জন্য বিশাল অর্থনৈতিক সুবিধা পেতে মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন।

লেটিশিয়া জেমস বলেন, আগামী ২০২৪ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচনী দৌড়ে আবারও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন ট্রাম্প। এজন্য তার বিরদ্ধে ফৌজদারি, সিভিল ও কংগ্রেশনাল তদন্ত চলমান রয়েছে। জেমসের কার্যালয় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ২৫০ মিলিয়ন ডলার জরিমানা ঘোষণা করেছে। কারণ তিনি জালিয়াতির মাধ্যমে বিশাল সম্পদ গড়েছেন। 

অ্যাটর্নি জেনারেল এক বিবৃতিতে জানান, ট্রাম্পের তিন সন্তান ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র, এরিক ট্রাম্প ও ইভানকা ট্রাম্পকে পাঁচ বছরের জন্য নিউইয়র্কে সম্পদ কেনা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। কারণ তাদের অর্জিত সম্পদের অন্তরালে সীমাহীন প্রতারণা ও অবৈধ পন্থার আশ্রয় নেওয়া হয়েছে।

জেমসের মামলায় বিচারককে অনুরোধ করা হয়েছে, ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের অর্থনৈতিক কার্যক্রম তদারকি করতে আলাদা একটি স্বাধীন কর্তৃপক্ষ নিয়োগ করুন এবং ট্রাম্পকে পরিবারের ব্যবসায়িক কার্যক্রম থেকে সরিয়ে নিন।

২০১৮ সালে প্রেসিডেন্ট থাকাকালেই ট্রাম্প ও তার পরিবারের ব্যবসায়িক প্রতারণা তদন্তের জন্য ফাইল খোলেন ম্যানহাটন জেলা অ্যাটর্নি। মূলত তখন থেকেই ট্রাম্প পরিবারের ব্যবসা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়। কারণ ডোনাল্ড ট্রাম্প স্বঘোষিত বিলিয়নিয়ার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। ২০২০ সালের ৬ জানুয়ারি মার্কিন ক্যাপিটলে হামলার ঘটনায়ও তার বিরুদ্ধে আইনি তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর