আপনি পড়ছেন

বিদেশি কর্মী ও সমকামীদের অধিকারের অজুহাতে বিশ্বকাপ আয়োজনের সময় কাতারের ওপর চলমান আক্রমণের সমালোচনা করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার। তিনি বলেন, টুর্নামেন্ট যখন শুরু হয়ে গেছে, তখন দেশটিকে আক্রমণ করা বন্ধ করে প্রশংসা করা উচিত। খবর মিডলইস্ট মনিটর।

tony blair 2টনি ব্লেয়ার

ব্রিটিশ দ্য নিউজ এজেন্টস পডকাস্টকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্লেয়ার বলেন, আমি মনে করি কাতারকে অসম্মান করা আমাদের জন্য বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। কারণ এটি তাদের সবচেয়ে বড় ইভেন্ট, তাদের জন্য এটি একটি বিশাল অনুষ্ঠান। আমাদের মিত্ররা দেশটিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছে।

সমকামী এবং বিদেশি কর্মীদের অধিকার নিয়ে কাতারের বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের বিষয়ে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস এক সময় পরিস্থিতি পাল্টাবে। আপনারা দেখছেন, এই মুহূর্তে মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে এক ধরনের সামাজিক বিপ্লব চলছে। তিনি এও বলেন, ওয়ান লাভ ব্যাজ পরা, বিশ্বকাপের সময় এলজিবিটি সম্প্রদায়ের সমর্থন এগুলোর দ্বারা কিন্তু কোনো দেশের প্রগতিশীল হওয়া বা না হওয়ার কোনও ইঙ্গিত পাওয়া যায় না।

qatar world cup 3কাতার বিশ্বকাপ

এ সময় টনি ব্লেয়ার মনে করিয়ে দেন, শেষবার ১৯৬৬ সালে যখন ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ আয়োজন করেছিল, তখন কিন্তু ইংল্যান্ডেও সমকামী হওয়া বেআইনি ছিল।

উল্লেখ্য, এই প্রথম আরব বিশ্বের কোনো দেশ ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজন করল। এ টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার আগ থেকেই বিদেশি কর্মীদের অধিকার এবং সমকামীদের অধিকারসহ নানা বিষয়ে আয়োজক দেশ কাতারের সমালোচনায় মাতে মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

জবাবে বিদেশি কর্মীদের ব্যাপারে কাতার জানিয়েছে, তারা কোনো আইন লঙ্ঘন করেনি এবং ক্ষতিগ্রস্ত কর্মীদের যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিয়েছে। অন্যদিকে সমকামী বিষয়ে তারা তাদের নিজস্ব সংস্কৃতিই অনুসরণ করবে।