আপনি পড়ছেন

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলে একটি মাদরাসার ভেতরে মসজিদে নামাজের সময় বিস্ফোরণে অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন আরো বহু মানুষ। হতাহতদের বেশির ভাগই ওই মাদরাসার শিক্ষার্থী। এদিকে তালেবানের শাসনামলে মসজিদে নামাজের সময় বোমা হামলায় বহু মানুষ নিহত হচ্ছে। কারা চালাচ্ছে এমন নৃশংস হামলা! এজন্য আইএস জঙ্গিদের দায়ী করছে তালেবান। খবর বিবিসি ও আল জাজিরা।

afghan bombআয়বাক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাদরাসায় বোমা হামলায় আহত ছাত্র

তালেবান কর্তৃপক্ষ জানায়, রাজধানী কাবুল থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে সামানগান প্রদেশের রাজধানী আয়বাকের জাহদিয়া মাদরাসায় বুধবার জোহরের নামাজের সময় বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। মাদরাসার বহু শিশু শিক্ষার্থী জোহরের নামাজ পড়ার জন্য সমবেত হয়েছিল। নামাজ শেষে লোকজন যখন বের হয়ে যাচ্ছিল, তখনই বোমার বিস্ফোরণ ঘটেছে।

প্রাদেশিক মুখপাত্র এমদাদুল্লাহ মুহাজির বলেন, স্থানীয় সময় পৌনে একটার দিকে শহরের কেন্দ্রে অবস্থিত জাহদিয়া মাদরাসায় এই বিস্ফোরণ ঘটে। নিহতদের বেশিরভাগই শিশু।

অনলাইনে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, বহু শিশুর দেহ ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে নামাজের ঘরে পড়ে আছে।

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, হামলায় আরও অনেক শিশু আহত হয়েছে। তাদের অনেকের অবস্থা গুরুতর।

আয়বাকের একটি হাসপাতালের এক চিকিৎসক জানান, আহত আরও ২৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই বিস্ফোরণের জন্য কে বা কারা দায়ী তা এখনও পরিষ্কার নয়। তবে আইএসের দিকে অভিযোগের তীর তালেবানের। যদিও আইএস এখনও এ হামলার দায় স্বীকার করেনি।

গত বছরের আগস্ট মাসে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর আফগানিস্তানের বিভিন্ন স্থানে বেসামরিক লোকজনকে লক্ষ্য করে বহু হামলার ঘটনা ঘটেছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ইসলামিক স্টেট (আইএস) এসব হামলা চালানোর দাবী করেছে।

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আবদুল নাফি টাক্কুর বলেন, এ হামলার ঘটনায় তদন্ত করছে তালেবানের নিরাপত্তা বাহিনী। এ হামলার সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়া হবে।