আপনি পড়ছেন

মালয়েশিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিম দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও নিজে কাঁধেই রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি সরকার প্রধানের পাশাপাশি আপাতত অথ র্মন্ত্রণালয় দেখভালের দায়িত্ব নিচ্ছেন। তিনি দেশটির অর্থনীতি পুনর্গঠন এবং আস্থা ফিরিয়ে আনতে চান। গতকাল শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

anwar ibrahim malaysian prime ministerআনোয়ার ইব্রাহিম

এপি ও ম্যানিলা টাইমসের খবরে বলা হয়, আনোয়ার ইব্রাহিম তার জোট সরকারে বেশকিছু নতুন মুখ দিয়েছেন। ২৮ সদস্যের মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়েছে। এরমধ্যে উপমন্ত্রীদের নাম এখনও ঘোষণা হয়নি। তবে ডেপুটি হিসেবে তিনি দুইজনের নাম ঘোষণা করেছেন। একজন হলেন ন্যাশনাল ফ্রন্টের প্রধান আহমেদ জাহিদ হামিদি, তিনি ইউনাইটেড মালয়েস ন্যাশনাল অর্গানাইজেশনেরও (ইউএমএনও) প্রধান। অপরজন হলেন বোর্নিও নেতা ফাদিল্লাহ ইউসুফ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে রেখেছেন ন্যাশনাল ফ্রন্টের সেক্রেটারি জেনারেল জাম্বরি আবদুল কাদিরকে। ১৯৯০ এর দশকে আনোয়ার নিজেই অর্থমন্ত্রী ছিলেন। নতুন মন্ত্রিসভার অধিকাংশই মালয় জনগোষ্ঠীর।

আনোয়ার বলেন, নতুন জোট সরকার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেশে সুশাসন নিশ্চিত এবং জনগণের বোঝা লাঘবে কাজ করবে।

এদিকে নতুন ডেপুটিদের নাম প্রকাশের পর সমালোচনায় বিদ্ধ হচ্ছেন আনোয়ার ইব্রাহিম। সমালোচনাকারীরা বলছেন, দুই ডেপুটির একজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।

সিঙ্গাপুরের ইনস্টিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সের ওহ ই সান বলেন, জাহিদের নিয়োগ আনোয়ারের সরকারকে কলঙ্কিত করবে। কিন্তু এই মুহূর্তে ইউএমএনও সমর্থন ধরে না রেখে আনোয়ারের অন্য কোনো উপায় নেই। তবে আনোয়ার অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন, এটা আশ্চর্যজনক নয়।

বিশ্লেষকরা বলছেন, আনোয়ার যে সমঝোতা করেছেন, তা নতুন মন্ত্রিসভায় প্রতিফলিত হয়েছে। ন্যাশনাল ফ্রন্টের সমর্থন নিশ্চিত করতে জাহিদের নিয়োগ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আনোয়ারের জোট সরকারকে সমর্থন করার জন্য বিভক্ত ইউএমএনওর সমর্থন পেতে জাহিদ মুখ্য ভূমিকা পালন করেছেন।

গত ১৯ নভেম্বর সাধারণ নির্বাচনের ফলাফলে এককভাবে কোনো জোট সরকার গঠন করতে ব্যর্থ হয়। আনোয়ার ইব্রাহিমের পাকাতান হারাপান সবচেয়ে বেশি ৮২ আসনে জয়রাভ করে। সরকার গঠন করতে দরকার ছিল ১১২ আসন। একটি ইসলামি জাতীয়তাবাদী ব্লক আশ্চর্যজনকভাবে ৭৩ আসনে জয়লাভ করে।

পরে মালয়েশিয়ার রাজা সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আনোয়ারের নাম ঘোষণা করেন। তিনি দেশটির ১০ম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। আনোয়ার মনে করেন, নতুন সরকারকে স্থিতিশীল রাখতে এখনই শক্তভাবে দেশের হাল ধরতে হবে। গত চার বছর ধরে রাজনৈতিক অস্থিরতায় ভুগছে মালয়েশিয়া।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর